নবাবগঞ্জের ঐতিহাসিক ‘ব্রজ নিকেতন’

নবাবগঞ্জ উপজেলায় কালের সাক্ষী নবাবগঞ্জের ঐতিহাসিক ‘ব্রজ নিকেতন’। উপজেলার দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্যে অন্যতম দু’শ’ বছরের পুরনো জজবাড়ি। প্রায় দু’শ’ বছর আগে জমিদার ব্রজেন সাহা বসবাসের জন্য তৈরি করেন ‘ব্রজ নিকেতন’। পরবর্তীতে আশির দশকে এক বিচারক পরিবার ব্রজ নিকেতনে বসবাস শুরু করলে এটি জজবাড়ি হিসেবে পরিচিতি পায়।

সেই জজবাড়ি এখন কলাকোপার প্রাণ। জজবাড়ির চোখ ধাঁধানো নির্মাণশৈলী দেখে মুগ্ধ হতে হয় দর্শনার্থীদের। যেকোনো পথিক হঠাত বাড়িটির কারুকাজ দেখলে থমকে দাঁড়াবে। বাড়ির সামনে রয়েছে বিভিন্ন ফুল ও ফল গাছের বাগান। বিশালাকৃতির ঐতিহ্যবাহী এ জমিদার বাড়ির পাশেই রয়েছে শান বাঁধানো পুকুর। যেখানে টলটলে পানিতে পা ভিজালেও ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। বাগানের হাজারও রকমের ফুল অনায়াসে দৃষ্টি আকর্ষণ করে। প্রচুর গাছগাছালির সমারোহ, পাখির কিচিরমিচির শব্দ শুনতে শুনতে সময় পার হয়ে যায়। এটি বিভিন্ন নাটক ও চলচ্চিত্রের স্যুটিংস্পট হিসেবেও ব্যবহূত হয়। কিছুদিন জনসাধারণের জন্য সম্পূর্ণ উন্মুক্ত করে দিলেও এখন কিছুটা আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে ভিতরে প্রবেশ করতে হয়।

জজবাড়ির পাশে রয়েছে কোকিলপ্যারী জমিদার বাড়ি। বাড়িটির সামনের দিকে বিশাল বিশাল কয়েকটি স্তম্ভ রয়েছে। আছে দৃষ্টিনন্দন ঝোলানো বাগান। এই জমিদার বাড়ির একটু দূরেই তেলেবাড়ি। যা মঠবাড়ি নামে পরিচিত। ইছামতি নদী ঘেঁষে এই তেলেবাড়ি এখন ২৯ আনসার ব্যাটালিয়নের বসবাস এবং আনসার ও ভিডিপি’র ক্যাম্প হিসেবে পরিচিত। যেকোনো উত্সবে এখানেও দর্শনার্থীদের ভিড় জমে। এটি একটি দৃষ্টিনন্দন স্থান। পিকনিক স্পট হিসেবেও এটি ব্যবহূত হয়। আনসারদের বসবাসের জন্য বিশাল একটি এলাকা নিয়ে গড়ে উঠেছে নয়নাভিরাম ক্যাম্পটি।

অন্য খবর  ২৯৯ কলেজে সমন্বিত পদ সৃষ্টি: প্রয়োজন যে ১৫ তথ্য

Comments

comments