মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের শোষণের অভিযোগ জাতিসংঘের

11
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের শোষণের অভিযোগ জাতিসংঘের

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকদের অবস্থা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা। গতকাল শুক্রবার জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশনারের কার্যালয়ের (ওএইচসিএইচআর) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, কর্মসংস্থানের আশায় সরকারি নিয়ম মেনে দেশটিতে গিয়ে তারা এখন চরম দুরবস্থায় রয়েছেন।

দেশটিতে যাওয়ার পর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ না পেয়ে এসব শ্রমিককে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। গ্রেফতার ও আটকও করা হচ্ছে। এ নিয়ে গভীর উদ্বেগ জানিয়ে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকের সুরক্ষায় জরুরি পদক্ষেপ নিতে দুই দেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের কয়েকজন বিশেষজ্ঞ।

বিবৃতিতে তারা বলেছেন, কয়েক মাস বা তারও বেশি সময় ধরে মালয়েশিয়ায় আছেন এ রকম বাংলাদেশি অভিবাসীরা অমর্যাদাকর এক পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছেন। তাদের যেকোনো সময় দেশে ফিরতে হতে পারে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়ায় যাওয়ার আগে এসব শ্রমিককে চাকরি ও কাজের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়। কিন্তু দেশটিতে প্রবেশের পর দেখা যায় প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কাজ পাচ্ছেন না তারা। কাজ না পেয়ে অনেক সময় তারা ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও মালয়েশিয়ায় থাকতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে দেশটির কর্তৃপক্ষের হাতে গ্রেফতার, বন্দী, দুর্ব্যবহার ও দেশে প্রত্যর্পণের ঝুঁকিতে পড়েন তারা।

অন্য খবর  বর্ণিল আয়োজনে নবাবগঞ্জ এসোসিয়েশনের বনভোজন

চাকরির ভুয়া প্রতিশ্রুতি দিয়ে শ্রমিকদের কাছ থেকে বড় অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ায় অপরাধী চক্রগুলোর দ্বারা অভিবাসী শ্রমিকেরা প্রতারণার শিকার হচ্ছেন। এমন প্রতিষ্ঠানে তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়, যার কোনো অস্তিত্বই নেই। আর এই নিয়োগের জন্য এসব চক্রকে অর্থ দিতে গিয়ে ঋণের ফাঁদে পড়ছেন শ্রমিকেরা।

জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব চক্রের সঙ্গে বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও জড়িত। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এর অবসান হওয়া দরকার।

শ্রমিকদের সঙ্গে প্রতারণায় জড়িত অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞ বলেন, বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ায় প্রতারণায় যুক্ত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত তেমন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। প্রতারণার শিকার ব্যক্তিরা এ নিয়ে কথা বললে প্রতিশোধ ও হয়রানির মুখে পড়তে হচ্ছে। এসব ঘটনা তদন্তে মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

বিষয়টি নিয়ে এর আগে জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা করেছেন বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

আপনার মতামত দিন