বিবাহ ইসলামের অন্যতম প্রধান সামাজিক বিধান পর্ব ১

13

(লেখকঃ দেলোয়ার হোসেন সাদ, দোহারের কৃতি সন্তান, মদীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত।) বিবাহ ইসলামের অন্যতম প্রধান সামাজিক বিধান এবং মহানবী ﷺ-এর এক গুরুত্বপূর্ণ সুন্নাহ।
বিয়ে করা শুধু মহানবী মুহাম্মাদ ﷺ-এর সুন্নাহই নয়; বরং তা অন্যান্য নবীগণেরও সুন্নাহ। আল্লাহ তা’আলা বলেন:
وَلَقَدْ أَرْسَلْنَا رُسُلاً مِنْ قَبْلِكَ وَجَعَلْنَا لَهُمْ أَزْوَاجاً وَذُرِّيَّةً
আমি আপনার পূর্বে অনেক রাসুল প্রেরণ করেছি এবং তাদেরকে স্ত্রী ও সন্তান দিয়েছি। (সুরা রাদ : ৩৮)
রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেন: “নিশ্চয়ই আমি নারীদের বিয়ে করি। সুতরাং যে আমার সুন্নাহ থেকে বিমুখ হবে, সে আমার (উম্মাহর) অন্তর্ভুক্ত নয়।”
(সহিহ বুখারী : ৫০৬৩;
সহিহ মুসলিম : ১৪০১)
▪দ্রুত বিয়ে হওয়ার জন্য আমলঃ
(প্রতিদিন ফজর এবং মাগরিবের ফরয সালাতের পর পড়বেন)
1⃣ দরূদে ইব্রাহীম (৩ বার)
اَللّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَعَلَىٰ اٰلِ مُحَمَّدٍ
হে আল্লাহ্‌! মুহাম্মাদ(সঃ)-এর উপর এবং মুহাম্মাদ(সঃ)-এর বংশধরগণের উপর রহমত নাযিল করুন।
كَمَا صَلَّيْتَ عَلَىٰ إِبْرَاهِيمَ وَعَلَىٰ اٰلِ إِبْرَاهِيمَ
যেমন আপনি রহমত নাযিল করেছিলেন ইবরাহীম(আঃ) এবং ইবরাহীম(আঃ)-এর বংশধরগণের উপর।
إِنَّكَ حَمِيدٌ مَّجِيدٌ
নিশ্চয়ই আপনি প্রশংসনীয়,সম্মানীয়।
اَللّهُمَّ بَارِكْ عَلَى مُحَمَّدٍ وَعَلَىٰ اٰلِ مُحَمَّدٍ
হে আল্লাহ্‌! মুহাম্মাদ(সঃ)-এর উপর এবং মুহাম্মাদ(সঃ)-এর বংশধরগণের উপর বরকত দিন।
كَمَا بَارَكْتَ عَلَىٰ إِبْرَاهِيمَ وَعَلَىٰ اٰلِ إِبْرَاهِيمَ
যেমন আপনি বরকত দিয়েছিলেন ইবরাহীম(আঃ) এবং ইবরাহীম(আঃ)-এর বংশধরগণের উপর।
إِنَّكَ حَمِيدٌ مَّجِيدٌ
নিশ্চয়ই আপনি প্রশংসনীয়,সম্মানীয়।
(বুখারী : ৩৩৭০)
2⃣ সূরা কাসাসের ২৪ নং আয়াতের অংশ (৭ বার)
رَبِّ اِنِّيْ لِمَاۤ اَنْزَلْتَ اِلَيَّ مِنْ خَيْرٍ فَقِيْرٌ
“রব্বি ইন্নীই লিমা— আংঝালতা ইলাইয়্যা মিন খইরিং ফাক্বীইর।”
আয়াতের অর্থঃ
হে আমার রব, নিশ্চয় আপনি আমার প্রতি যে অনুগ্রহই নাযিল করবেন, আমি তার মুখাপেক্ষী।
3⃣ সূরা তাওবাহ্ ১২৯ নং আয়াতের অংশ (৭ বার)
حَسْبِيَ اللّٰهُ ﻵ إِلٰهَ إِلاَّ هُوَ عَلَيْهِ تَوَكَّلْتُ وَهُوَ رَبُّ الْعَرْشِ الْعَظِيْمِ
“হাসবি ইয়াল্লহু লা— ইলা-হা ইল্লা হুয়া ‘আলাইহি তাওয়াক্কালতু ওয়া হুয়া রব্বুল ‘আরশিল ‘আযীম।”
আয়াতের অর্থঃ
আমার জন্য আল্লাহ্‌ই যথেষ্ট, তিনি ছাড়া কোন সত্য ইলাহ্ নেই । আমি তাঁরই উপর নির্ভর করি এবং তিনি মহা’আরশের রব।
4⃣ ইস্তিখারার সংক্ষিপ্ত দু’আ (৭ বার)
‏ اللَّهُمَّ خِرْ لِي وَاخْتَرْ لِي ‏
“আল্লহুম্মা খিরলীই ওয়াখ তারলীই।”
আয়াতের অর্থঃ
হে আল্লাহ্‌! আমার জন্য যেটা মঙ্গল সে দিকে আমাকে চালিত করুন।
(সুনান তিরমিযী : ৩৫১৬;
সুনান ইবনু মাজাহ্ : ১৫৫৭)
5⃣ দরূদে ইব্রাহীম (৩ বার) ও সূরা ফুরকানের ৭৪ নং আয়াত।
★দুআগুলো আরবি দেখে পড়বেন, কেননা বাংলা উচ্চারণ থেকে আরবি সহিহ

অন্য খবর  ফিশ কাটলেট তৈরির নিয়ম

মন্তব্য