নবাবগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হলেন যারা (ভোটসংখ্যা সহ)

4308

চতুর্থ ধাপে প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চৌদ্দটি ইউনিয়নের মধ্যে নয়টিতে আওয়ামীলীগ, তিনটিতে বিএনপি, একটিতে জাতীয়পার্টি ও একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। শনিবার রাতে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শেখ হাবিবুর রহমান জানান, রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে স্ব স্ব রির্টানিং কর্মকর্তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিল আহম্মেদে ও প্রার্থীর উপস্থিতিতে বেসরকারিভাবে এ ফলাফল ঘোষণা করেন ।

নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন:

কলাকোপা ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের আলহাজ্ব মো: ইব্রাহীম খলিল ৪৫৮০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির মহসিন রহমান তুষার ৩৯৯২ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মীর আরিফ হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে ২৩০১ ভোট পেয়েছেন।

যন্ত্রাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নন্দ লাল সিং ৭৫১৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির মো: সেন্টু মোল্লা ৭৫৮ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: বারেকুর রহমান আনারস প্রতীক নিয়ে ৪৬৭২ ভোট ও আকুল বেপারী ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৯৩ ভোট পেয়েছেন।

শোল্লা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দেওয়ান তুহিন রহমান ৯৩৫৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: ফজলুল হক চশমা প্রতীক নিয়ে ৬২৩৬ ভোট পেয়েছেন।

কৈলাইল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের পান্নু মাদবর ৩৫৯৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির উদ্দিন আনারস প্রতীক নিয়ে ৩৫৩৩ ভোট পেয়েছেন।

বক্সগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আব্দুল ওয়াদুদ মিয়া ৮২৮৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচন বয়কট করা তার নিকটতম বিএনপির এরশাদ আল-মামুন ২০৯৭ ভোট পেয়েছেন।

অন্য খবর  অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ: দোহারে দুই বেকারীকে জরিমানা

বাহ্রা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অ্যাডভোকেট সাফিল উদ্দিন মিয়া ৬৯৮৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির হাজী আব্দুস সালাম ১৭৩৩ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সুবেদ্দুজ্জামান সুবেদ আনারস প্রতীক নিয়ে ৬১২৪ ভোট পেয়েছেন।

আগলা ইউনিয়নে বিএনপির আবেদ হোসেন ৪০৩৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের সুরুজ খান ৪০১১ ভোট পেয়েছেন।

বান্দুরা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিল্লাল মিয়া আনারস প্রতীক নিয়ে ১১৭২৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের নাসির উদ্দিন ৩৪৯০ ভোট পেয়েছেন।

নয়নশ্রী ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির রিপন মোল্লা লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে ৪৪১৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের পলাশ চৌধুরী ৩৬৬২ ভোট, বিএনপির হাবিবুর রহমান খান ২২১১ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী হাবিবুর রহমান আনারস প্রতীক নিয়ে ২৩৫৬ ভোট, মো: মাসুদ মোল্লা চশমা প্রতীক নিয়ে ৮৮১ ভোট, সোরহাব হোসেন টেবিল ফ্যান প্রতীক নিয়ে ৫৬ ভোট , মো: আলমগীর ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৪২ ভোট, মো: হাবিবুর রহমান মটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ৪৮৬ ভোট ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ সারোয়ার আলম হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ২৫৬ ভোট পেয়েছেন।

জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নে বিএনপির মাসুদুর রহমান ৩৩৩৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের আবুল হোসেন ১৭১২ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: কামাল হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে ২৫৯৮ ভোট মো: মাহফুজ খান চশমা প্রতীক নিয়ে ৭৫ ভোট ও মোতাহার হোসেন মটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে ১৭৭৯ ভোট পেয়েছেন।

অন্য খবর  টঙ্গীতে যুবকের লাশ উদ্ধার : আটক ২

শিকারীপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের আলীমোর রহমান খান পিয়ারা ৪৪৫২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির আব্দুল জব্বার ২১৩৮ ভোট ও আ.লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোজাম্মেল হক টিপু আনারস প্রতীক নিয়ে ৪২২০ ভোট পেয়েছেন।

বারুয়াখালী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ইঞ্জিনিয়ার আরিফ শিকদার ৩২৯৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির আবদুল্লাহ আল-মামুন ৩০২৮ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী রজ্জব মোল্লা আনারস প্রতীক নিয়ে ৩০৭৬ ভোট পেয়েছেন।

গালিমপুর ইউনিয়নে বিএনপির তপন মোল্লা ২৮৩৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের আজিজুর রহমান ভূইয়া ১৭২২ ভোট, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী লুৎফর রহমান বেপারী ২৪৬৯ ভোট ও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে শিল্পী ইসলাম ৮৭৪ ভোট পেয়েছেন।

চূড়াইন ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের হাজী আব্দুল জলিল ৫৩৯৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম বিএনপির হাজী ইউসুফ আলী খান ৩১৩৮ ভোট ও স্বতন্ত্র বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আবু সাইদ ৩৩৯০ ভোট ও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে আসমা আক্তার রুমি ৫৩৪ ভোট পেয়েছেন।

শনিবার চতুর্থ ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নবাবগঞ্জের ১৪টি ইউনিয়নে ১৪৩টি ভোট কেন্দ্রে সকাল ৮টা থেকে টানা বিকাল বিকাল ৪টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্নভাবে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। ১৪টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৫৯ জন, সংরক্ষিত মহিলা আসনে ১২৬ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৪৬০ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

আপনার মতামত দিন