দোহার-নবাবগঞ্জের তেরো বছরের পুরোনো ছবি

3529

০৪ জানুয়ারী, ২০১৮ :: পরিবর্তনের জন্য দশ বছর নেহাত কম সময় নয়, আজকে যেখানে খাল কাল সেখানে ভরাট করে দালান উঠে যাচ্ছে, মাঠ ঘাট হয়ে যাচ্ছে গ্রাম নয়তো বাজার। এই সময়ের মধ্যে দোহার-নবাবগঞ্জে দৃশ্যমান অনেক পরিবর্তন এসেছে। ২০০৭ থেকে ২০০৯ সালে তোলা ঢাকা জেলার দোহার ও নবাবগঞ্জের পুরোনো ছবি নিয়ে এই ছবিঘর:

১# মৈনট : জুলাই, ২০০৮

পদ্মার বুক পর্যন্ত চলে যাওয়া মৈনটের প্রথম সড়কের স্মৃতিচিহ্ন এটি। ভরা বর্ষায় পদ্মার পানি দুই পাড় ছাপিয়ে চলে আসে বহু কাছে, সেই পানির তোড়েই ভেসে যায় এই সড়ক, সড়াকের একাধিক সেতু।

২# নবাবগঞ্জের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার তখন তৈরি হচ্ছিল: নভেম্বর ২০০৭

৩# জয়পড়া-গালিমপুর সড়ক : আগস্ট ২০০৮

তখন সংস্কার কাজ চলছিল। তৈরি হওয়ার বহু বছর পর পর্যন্ত যান চলাচলের জন্য আরামদায়ক ছিল না রাস্তাটি।

৪# কলাকোপা বিবিরচর সাধু মেলা: জানুয়ারি ২০০৮

৫# জয়পাড়া কলেজ পুকুর, এই নাড়িকেল গাছগুলির বেশিরভাগ এখন আর নেই: আগস্ট ২০০৭

৬# অবকাশ সিনেমা হল: মার্চ ২০০৯

এই সিনেমে হলের কথা মনে পড়লে দোহারের মানুষ নস্টালজিক না হয়ে পারে না। আশি-নব্বইর দশকে মানুষের বিনোদনের অন্যতম প্রধান কেন্দ্র ছিল এটা। এখানে জড়িয়ে আছে এলাকাবাসীর বহু স্মৃতি।

অন্য খবর  ঢাকার দক্ষিণের বেশিরভাগ সড়ক চলাচলের অনুপযোগী

৭# এখন “আদনান প্যালেস”, এর সামনে থেকে এক সময় মেলা বসত: জানুয়ারি ২০০৮

৮#  নবকুটির, এখন “আদনান প্যালেসে”র অংশ: জানুয়ারি ২০০৮

এটা প্রথমে ছিল একটা ব্যাংক অফিস।

৯# এই ডোবার উপরে এখন মুক্তিযোদ্ধা মার্কেট: ফেব্রুয়ারি ২০০৯

তখন আরামের কাউন্টার ছিল এখানে, তারও অনেক আগে সোনার হরিন নামে একটা বাস ছাড়ত এখান থেকেই।

১০# এখানে এখন রতন স্বাধীনতা ভাস্কর্য: ফেব্রুয়ারি ২০০৯

১১# আলগিচরের এই মসজিদটি এখন দো’তলা: আগস্ট ২০০৭

১২# জয়পাড়া চৌরাস্তা, এখনো জঞ্জালপূর্ণ: আগস্ট ২০০৭

কিছুটা পরিবর্তন হয়েছে, তবু এখনো জঞ্জালপূর্ণ

মন্তব্য