দোহারে সওজের রাস্তা নির্মানে ফাঁকি তদন্তে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী

989
গালিমপুর সড়ক, নবাবগঞ্জ

দোহার উপজেলার সওজের নির্মানাধীন প্রায় ২২ কোটি টাকার ৪টি রাস্তায় পাথরের পরিবর্তে বালু ও পুরাতন ইটভাঙ্গা মিশিয়ে রাস্তায় ব্যবহার করায় এলাকাবাসী বাধা প্রদান করে। পরে বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান ও প্রশাসন বরাবর লিখিত অভিযোগ জানালে তদন্তে আসেন সওজের মুন্সিগঞ্জ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হেনা মো.তারেক ইকবাল।

গতকাল রোববার সকালে সওজের মুন্সিগঞ্জ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হেনা মো.তারেক ইকবাল দোহারের নির্মানাধীন ৪টি রাস্তার কাজ পরিদর্শনে আসলে অভিযোগের সত্যতার প্রমান পান। উভয় রাস্তাগুলির পাশ ৫.৫ মিটার চওড়া হওয়ার কথা থাকলেও বাস্তবে তিনি কম দেখেন।রাস্তার দুপাশে ১ মিটার করে আঠালো মাটি দ্বারা সংস্কারের কথা থাকলেও তা হয়নি এবং যা হয়েছে তা বালু মাটি দ্বারা করা হয়েছে।রাস্তার অ্যাপরোজ ও মোড়গুলির পাইলিং নিম্নমানের করা হয়েছে। নির্মানাধীন রাস্তার বেশির ভাগ জায়গা ভেঙ্গে পড়েছে।এসময়ে কোন ঠিকাদারকে নির্বাহী প্রকৌশলী উপস্থিত পান নাই।

সুত্রে জানা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতায় প্রায় ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলার টিকরপুর-গালিমপুর ৩.৫ কিলোমিটার কাজটির কার্যাদেশ পান মেসার্স সর্দার এন্টারপ্রাইজ,গালিমপুর-নিকরার চক হয়ে বানাঘাটা পর্যন্ত কাজটির কার্যাদেশ পান কে এ ডিলাক্রা জেভি,বানাঘাটা সড়ক হয়ে জয়পাড়া কলেজ মোড় পর্যন্ত কাজটির কার্যাদেশ পান মেসার্স মাসুদ হাইটেক ইঞ্জিনিয়ারিং,বানাঘাটা হয়ে দোহার বাজার পর্যন্ত কাজটির কার্যাদেশ পান মেসার্স কেসিই জয়েন্ট ভেঞ্চার নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

অন্য খবর  বাহ্রা-অরঙ্গাবাদ বাঁধ; নয়াবাড়ীতে উপজেলা চেয়ারম্যানকে সংবর্ধনা

এসময়ে উপস্থিত ছিলেন দোহার উপজেলা চেয়ারম্যান মো.আলমগীর হোসেন,উপজেলা প্রকৌশলী সুশীল চন্দ্র সরকার,উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুল সহ প্রমুখ।

এ বিষয়ে সওজের মুন্সিগঞ্জ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু হেনা মো.তারেক ইকবাল জানান,ঠিকাদারকে সিডিউল মোতাবেক কাজ বুঝাইয়া দিতে হইবে।

এ বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান মো.আলমগীর হোসেন জানান,কাজটি পাথর ও বালু দ্বারা মেকাডাম করার কথা শিডিউলে থাকলেও তা মানছে না ঠিকাদার।

এ বিষয়ে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল করিম ভূইয়া জানান স্থানীয়দের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে বিষয়টি সওজ কতৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার তাগিদ দিয়েছি।

আপনার মতামত দিন