দামেস্কের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করবে আঙ্কারা: প্রেসিডেন্ট এরদোগান

10

বনা রয়েছেতুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান সিরিয়ায় আগ্রাসন চালানোর হুমকি দেয়ার একই সময়ে বলেছেন, দামেস্কের সঙ্গে আঙ্কারার সম্পর্ক স্বাভাবিক করার সম্ভা। তিনি গতকাল (রোববার) আঙ্কারায় এক বক্তব্যে বলেন, “মিশরের সঙ্গে যেভাবে তুরস্কের সম্পর্ক স্বাভাবিক হচ্ছে একইভাবে সিরিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রেও একইপথে হাঁটবে তুরস্ক।”

কায়রোর সঙ্গে আঙ্কারার সম্পর্ক স্বাভাবিক করার যে প্রক্রিয়া চলছে তার অংশ হিসেবে গত রোববার দোহায় বিশ্বকাপ ফুটবলের অবকাশে মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাত্তাহ আল-সিসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রজব তাইয়্যেব এরদোগান। ২০১৩ সালে আল-সিসি মিশরের সাবেক ইসলামপন্থি প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত ও তার সমর্থকদের বিরুদ্ধে রক্তক্ষয়ী দমন অভিযান চালানোর পর দেশটির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছিল তুরস্ক।

প্রেসিডেন্ট এরদোগান রোববার তার বক্তব্য আরো বলেন, “রাজনীতিতে স্থায়ীভাবে কঠোর অবস্থান ধরে রাখার কোনো সুযোগ নেই।”

তুর্কি প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন গত মাসে বলেছিলেন, প্রেসিডেন্ট এরদোগান ও তার সিরীয় সমকক্ষ বাশার আল-আসাদের মধ্যে বৈঠক আয়োজনে মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এরপর চলতি মাসের গোড়ার দিকে এরদোগান বলেন, তিনি সময়মতো পুতিনের প্রস্তাব বিবেচনা করে দেখবেন।

সিরিয়ায় বিদেশি মদদে সহিংসতা ও যুদ্ধ শুরু হওয়ার এক বছর পর ২০১২ সালের মার্চ মাসে দামেস্কের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে আঙ্কারা। ওই সময় সিরিয়ায় বহু সন্ত্রাসী গোষ্ঠী মারাত্মক নাশকতা, রক্তপাত ও ধ্বংসযজ্ঞ চালায় যার কোনো কোনো গোষ্ঠীকে সরাসরি তুরস্ক পৃষ্ঠপোষকতা দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়া, ২০১৬ সাল থেকে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তিনবার স্থল আগ্রাসন চালায় আঙ্কারা। সিরিয়ায় কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী ওয়াইপিজি আশ্রয় নিয়েছে বলে অভিযোগ তুলে এসব আগ্রাসন চালায় তুরস্ক। গত সপ্তাহে প্রেসিডেন্ট এরদোগান আরেকবার উত্তর সিরিয়ায় অবৈধ আগ্রাসন চালানোর ঘোষণা দিয়েছেন।#

আপনার মতামত দিন