জয়পাড়া বাজার সড়ক : খানা-খন্দে ভরপুর

384

সোহেল আহমেদ ♦ দোহারের প্রধান বাণিজ্যিক এলাকা জয়পাড়া বাজারের পশ্চিম অংশের রাস্তার অবস্থা খুব করুণ। বর্তমানে টানা বৃষ্টিতে রাস্তার যে অবস্থা দাড়িয়েছে তাকে আর রাস্তা বলে চেনার উপায় নেই। বৃজ থেকে এবি ব্যাংক পর্যন্ত কিছুদিন আগে সংস্কার হলেও তার পরের অংশ সর্বশেষ ৭ বছর সংষ্কারের পর আর কোন উন্নয়ন কাজ হয় নি। যার ফলে রাস্তার এই দুরবস্থা হয়েছে। দিনে দিনে ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়ছে এই রাস্তা। ডাচবাংলা ব্যাংকের সামনে থেকে শুরু করে লটাখোলা বাজার পর্যন্ত এই  রাস্তার মাঝখানে বিভিন্ন যায়গায় তৈরী হয়েছে গভীর খানা-খন্দ, কোথাও কোথাও পিচের চিহ্নও নেই।

দোহারের প্রানকেন্দ্র জয়পাড়া বাজার এই উপজেলার অন্যতম বানিজ্যিক কেন্দ্রও। দোহারের বেশির ভাগ বড় বড় ব্যবসায় কেন্দ্র জয়পাড়া বাজারে অবস্থিত। এই বাজারের যাবতীয় মালামাল বহন করার জন্য ব্যবহার করা হয় বাজারের মাঝ দিয়ে চলে যাওয়া এই রাস্তটি। রাস্তার বিভিন্ন স্থানে সৃস্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। আর একটু বৃষ্টি হলে পানিতে সয়লাব হয়ে যায় পুড়ো রাস্তা। তখন আর গর্তের অবস্থান বোঝার সুযোগ থাকে না, ফলে রিক্সা, অটো-রিক্সা, মোটরসাইকেল, জিপ ইত্যাদী সে সব গর্তে পড়ে অহরহ ঘটছে বিভিন্ন ছোট খাট দূর্ঘটনা। যা যেকোন সময় বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

অন্য খবর  আমার স্বপ্ন দোহার নবাবগঞ্জের উন্নয়নঃ সালমা ইসলাম

বৃস্টির সময় পানি রাস্তা ছাপিয়ে বাজারের বিভিন্ন দোকান ঢুকে পড়ে। যার ফলে রাস্তার পাশের দোকানদাররাও ভোগছে এই র্দূভোগে।  বিগত ৭ বছরে কোন উন্নয়ন কাজ হওয়ার কারনে আজ এই বেহাল দশা এই রাস্তার বলে মনে করেন জয়পাড়া বাজারের দোকানদাররা। বর্তমান সরকারের আড়াই বছর পার হয়ে গেলেও হয় নি কোন উন্নয়ন কাজ। চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়া এই রাস্তার দিকে দৃস্টি দিচ্ছেন না এই এলাকার জনপ্রতিনিধিরাও।

জয়পাড়া বাজারের সাধারণ দোকান মালিকরা অবিলম্বে এই রাস্তার উন্নয়নের দাবী জানিয়েছেন। তারা এই রাস্তার উন্নয়ন কাজে  গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আব্দুল মান্নান খানের হস্তক্ষেপও  কামনা করেছেন।

আপনার মতামত দিন