নবাবগন্জে ছাত্রলীগের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ: আহত ২৫, গ্রেফতার ১৩

491

নিজস্ব প্রতিবেদক ♦ সকাল আনুমানিক ১১ টার দিকে দোহার থানা আওয়ামী লীগের যৌথসভায় যোগদানের উদ্দেশ্যে ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মোঃ সেন্টু, দোহার পৌরসভা ছাত্রলীগ সভাপতি আব্দুস সালাম শুকুর সহ প্রায় দুই শতাধিক মটরসাইকেল নিয়ে তিন শত নেতাকর্মী যখন নবাবগঞ্জ উপজেলার মাঝিরকান্দা দিয়ে দোহার প্রবেশের সময়ে পুলিশের সাথে নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ সময় পুলিশ তাদের বেধরক লাঠিচার্য করে এবং ফাঁকাগুলি ছোড়ে। এতে ছাত্রলীগের প্রায় ২৫ জন নেতাকর্মী গুরুতর ভাবে আহত হয় এবং পৌরসভা ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন রাজীব সহ প্রায় ১২ নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। এ সময় পুলিশ ২৩টি মটরসাইকেল আটক করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার জন্য সেখানে দোহার থানা, নবাবগঞ্জ থানা ও ঢাকা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরে পুলিশ মাঝিরকান্দা সড়ক বন্ধ করে দেয় ও ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে বলে জানা যায়। এতে সাধারণ যাত্রীদের চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়। বর্তমানে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে এবং জনমনে আতংক বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে প্রশাসন তৎক্ষনিক ভাবে কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

অন্য খবর  দোহারে ইয়াবাসহ সাত মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

জয়পাড়া কলেজ ছাত্রনেতা সাইফুল কবির বাবু জানান, “দোহার থানা আওয়ামী লীগের যৌথসভায় যোগদানের উদ্দেশ্যে মাঝিরকান্দা দিয়ে দোহার ঢোকার মুহূর্তে অর্তকিতে পুলিশ আমাদের হামলা করে মারাত্বক ভাবে আহত করে।” বাবু আরো বলেন, তারা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার এবং এজন্য কলেজ ছাত্রনেতা মোঃ রাজীব শরীফ কে অভিযুক্ত করেন।

টেলিফোনে যোগাযোগ করলে মোঃ রাজীব শরীফ প্রথমে কোন মন্তব্য করতে রাজী হন নি।, পরবর্তীতে তিনি বলেন আমাদের প্রতিবেদককে জানান, “প্রশাসন তার নিজের গতিতে চলছে। প্রশাসনের কাজে বাধা হলেতো প্রশাসন ব্যবস্থা নিবেই। আর মাননীয় মন্ত্রীমহোদয় অত্যন্ত শান্তিপ্রিয়। তিনি কোন প্রকার ঝামেলা বা সংঘর্ষ পছন্দ করেন না।” তবে যারা গ্রেফতার হয়েছে তারা তার মামলার আসামী বলে তিনি জানান। উল্লেখ্য, গত ৩রা জানুয়ারী জয়পাড়া কলেজ ছাত্রনেতা মোঃ রাজীব শরীফ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছিলেন।

থানায় গ্রেফতারকৃতদের মুক্ত করতে দোহার উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান দোহার থানায় গিয়েছেন।

আপনার মতামত দিন