“আনন্দ বেদনার বিদায়ী উৎসব জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অনার্স চতুর্থ বর্ষের|

1589

র‍্যাগ-ডে একটি ইংরেজি প্রবাদ।যার বাংলা অর্থ পড়ালেখা শেষের হৈচৈপূর্ন দিন।এমনিভাবেই হাসি তামাশা আর হৈহুল্লোড়ে পালিত হলো জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান, হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের অনার্স চতুর্থ বর্ষের র‍্যাগ ডে।

ধবধবে সাদা টি শার্ট সকলের গায়ে।মেয়েরাতো অনেকে সবুজ আর লালের সালোয়ার কামিজে সেজেছে দলবেধে।সকলের গায়েই সাদা টি শার্ট কিন্তু একটু যায়গাও যেন সাদা নেই।লাল,নীল,সবুজ আর কালো রঙের হিজিবিজি লেখালেখি। আজ যেন লেখালেখির লগ্ন এসেছে।কেওবা জড়ির ঝিকিমিকি মেখে দিচ্ছে প্রিয় বন্ধু-বান্ধবির গালে।সে এক মোহনীয় দৃশ্য।
এরইমাঝে মাইকে আওয়াজ আসে সকলকে সেমিনার কক্ষে প্রবেশ করার জন্য।যথারীতি,ছাত্রছাত্রীরা নিজেদের আসন নেওয়ার পর নজরুলের পবিত্র কুরআন তিলাওয়াতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা।অনুষ্ঠানের সঞ্চালনায় ছিল রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শরিফ হাসান।

যথাসময়ে অধ্যক্ষ সিদ্দিকুর রহমান,সহকারি অধ্যক্ষ তাপস কুমার নন্দি সহ বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও অন্যান্য মাননীয় শিক্ষক মহোদয় আসনগ্রহণ করে।রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব রাজিব শরিফ ও মোশাররফ হোসেন শান্ত ও উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।তাদের মহামূল্যবান বিদায়ী বক্তব্যে উঠে আসে,শিক্ষার্থীদের সাফল্য কামনা,তাদের এগিয়ে যাবার এবং দেশের জন্য কিছু করার আহবান।
এরপর শিক্ষকগন ও ছাত্রছাত্রীরা একে অপরকে কেক খাওয়ানোর মধ্য দিয়ে দুপুরের খাবার পরিবেশনে চলে যায়।খাওয়া দাওয়া শেষ হলে কিছুক্ষন বিশ্রাম নিয়ে ছাত্রছাত্রীরা ছবি তোলায় ব্যস্ত হয়ে পড়ে।একক,দলীয়, এখানে ওখানে প্রিয় ক্যাম্পাসের সর্বত্র ছিল ছাত্রছাত্রীদের ছবি তোলার উৎসব।
পড়ন্ত বিকেলে ছিল দোহারের নীল ব্যান্ডের সংগীতানুষ্ঠান। একেরপর এক ধামাকেদার পারফরমেন্স করে শ্রোতাদের আসন ছেড়ে নাচতে বাধ্য করে।
এরইমাঝে একদল ছাত্রছাত্রী অসুস্থ দারোয়ান কাকার জন্য সকলের কাছ থেকে আর্থিক সাহায্য সংগ্রহ করে।

অন্য খবর  ঢাকা-নবাবগঞ্জ সড়ক: খানাখন্দ, যানবাহন চলাচল ব্যাহত

বন্ধুবান্ধব নিয়ে আড্ডা,ঘোরাঘুরি,ক্লাস আর অ্যাসাইনমেন্টের ভিড়ে কিভাবে যে চারটা বছর কেটে বিদায় ঘন্টা বেজে গেল টেরই পেলাম না।মধুময় দিনগুলির স্মৃতি হৃদয়ের ফ্রেমে কল্পনা করতে করতেই কনসার্ট শেষ হয়ে সূর্য ডোবার পালা।অন্তিমলগ্নে এসে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ে সবাই।পরস্পরকে অশ্রুসজল নয়নে বিদায় জানিয়ে পাড়ি জমায় নিজবাসভুমে।

আপনার মতামত দিন