বারুয়াখালী-বক্তারনগর সেতু: নিউজ৩৯ এ সংবাদ প্রকাশের পর টনক নরেছে প্রশাসনের

294

গত ২০ জনুয়ারী “ব্রিজের কাছে এলে মনে হয় পাহাড়ে উঠুম” এ সংবাদটি নিউজ৩৯ এ  সংবাদ টি প্রকাশিত হওয়ায় স্থানীয় প্রশাসনের টনক নরেছে। বারুয়াখালী-বক্তারনগর ইছামতি নদীর উপর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এল,জি,ই,ডি) এর আর্থায়ানে ২ কোটি ৩২ লক্ষ ৭৪ হাজার টাকা ব্যায় ৮৪.০মি দীর্ঘ পিসি গর্ডার আইসিসি ব্রিজটি নির্মিত করা হয়। গত ২৬ আগষ্ট পরদা টেনে ব্রিজের শুভ উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণর্পূত প্রতিন্ত্রী অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান।

ব্রিজ উদ্বোধনের প্রায় ৬ মাসেও ব্রিজের এপ্রোচ সড়ক করা হয়ে হয়েছিল না। গত ১৬ জানুয়ারী আমাদের এই প্রতিবেদক বারুয়াখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুন খানের সাথে ফোনে কথা বললে তিনি জানায় খুব শিঘ্রই বারুয়খালী ইউনিয়ন ব্রিজের অংশে মাটি ফেলে ঠিক করে দিবেন। সংবাদ প্রকাশের পর ব্রিজের গোড়ায় মাটি ফালানোর হয়েছে এর ফলে যানবাহন ও পথচারিদের চলাচলে আগের মত র্দূভোগ পোহাতে হবে না।

এ ব্যাপারে ইজিবাইক চালক অপু বলেন নিউজ৩৯কে ও আমাদের এ প্রতিবেদককে  আমার পক্ষ থেকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। এ প্রতিবেদন টি যদি প্রকাশিত না হতো তা হলে হয় তো ১ বছরের মধ্যেও এ কাজটি হতোনা। তিনি আরো জানায় এখন আগের মত গাড়ি ঠেলা দেবার জন্য ৪/৫ জন্য অপেক্ষায় থাকতে হবেনা। এ টানে ব্রিজে উঠটে পারুম।

অন্যদিকে পথচারি হামজা জানায় ব্রিজের গোড়ায় মাটি আরো অনেক আগেই দেওয়া দরকার ছিল কিন্তু নিউজ৩৯ এ সংবাদ প্রকাশের পর এ রাস্তা ঠিক করা হলো এ জন্য নিউজ৩৯ ও আমাদের এ প্রতিবেদক কে আমান আন্তরের  আন্তরস্থর থেকে অভিন্দন জানায়।

এ ব্যাপারে পাঞ্জিপহরী গ্রামের মীর লিয়াকত আলী নিউজ৩৯ কে জানায়, বাপ দাদার আমল থেকেই শুনতাছি এ নদীর উপর ব্রিজ হবে অবশেষে এই সরকারের আমলেই আশা পূরণ হলো। এতো দিন ব্রিজের গোড়ায় বালি থাকায় চলাচলে কষ্ট হতো মাটি ফালিয়ে ভরাটের কারনে আর চলাচলে কষ্ট হবে না।

আপনার মতামত দিন