১৮ দলীয় জোট ক্ষমতায় আসলে মেয়েদের শিক্ষার পথ বন্ধ হয়ে যাবে: আব্দুল মান্নান খান

397

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান বলেন, জামায়াত ইসলামের মাওলানারা বলেন মেয়েদের কে ৪ ক্লাসের বেশি পড়ালেখা করা উচিত নয়। অথাৎ তোমাদের পড়ালেখা বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। বিএনপির নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলছেন আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় গেলে আওয়ামিলীগ যা যা করছে আমি সব পাল্টে দিবো। তোমাদের মধ্য যদি কেউ প্রধান মন্ত্রী হউ, কেউ রাষ্টপ্রতি হউ মনে রাখতে হবে দেশ কীভাবে চালাবে । দেশ চালানোর দায়িত্ব এখন থেকেই তোমাদের ভাবতে হবে। সবাই রাষ্টপ্রতি হবে না সবাই প্রধানমন্ত্রী হবে না। তবে বড় বড় স্বপ্ন দেখলে অনেক বড় পদে না গেলেও নিজে কে অনেক উচ্চতায় নিয়ে যেতে পাড়বে।

এ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান ২০ জুলাই শনিবার দুপুরে ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার বারুয়াখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক নবনির্মিত একাডেমি ভবন এবং ক্যাসিলিটিজ ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক নির্মিত পাকা ভবনের দ্বিতীয় তলার নির্মান কাজের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা  বলেন।

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের সরকার এসএসসি পর্যন্ত পড়ালেখা বিনা বেতনে করার কথা ভাবছে। আগামীতে আমাদের সরকার পুনোরায় নির্বাচিত হলে আমরা বাংলাদেশের ৬৪ হাজার গ্রামের রিকসাওয়ালার ছেলে-মেয়ে, দিনমজুরের ছেলে- মেয়ে, কাজের বুয়ার ছেলে-মেয়েকে স্কুলে নিয়ে পড়ালো শিখিয়ে মানুষের মত মানুষ করে গড়ে তুলতে চাই। সমস্ত মানুষকে আমরা শিক্ষিত করতে চাই। ১৬ কোটি মানুষ যদি শিক্ষায় দিক্ষায় জ্ঞানে বিজ্ঞানে প্রযুক্তিতে উন্নতি লাভ করতে পারে তাহলে পৃথিবী  অন্য দেশের মানুষের সাথে পাল্লা দিয়ে চলার কৌশল শিখতে পারবে।

বারুয়াখালী উচ্চ  বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি মাসুদ রেজা খানের সভাপতিত্বে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনাকে দোহার, নবাবগঞ্জ ও  কেরানিগঞ্জ এলাকা যাতে ১০০ বছর অগ্রগতী সাধিত হয় সে জন্য আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মানের জন্য অনুরোদ করেছিলাম। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মানের সম্মতি দিয়েছিলেন কিন্তু আমারই এলাকার মানুষ বুঝে না বুঝে  বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার চক্রান্তের ফাঁদে পা দিয়ে সে আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মানের কাজ স্থগিত করা হয়েছে। আড়িয়াল বিলে বিমানবন্দর নির্মান হলে দোহার-নবাবগঞ্জ এলাকা বাংলাদেশের মধ্যে শ্রেষ্ট এলাকায় পরিণত হতো। দোহার নবাবগঞ্জের মানুষ ১’শ বছর অগ্রসর হতো। বহু বেকার যুবসমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হতো । ৫ লাখ টাকার জমি ১ কোটি টাকা মূল্যে রুপান্তরিত হতো। মন্ত্রী বলেন বিমানবন্দর না হলেও আপনাদের সামনে আরো একটি সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত দোহার সফর করে গেছেন। তিনি দেশের সুদুর প্রসারী চিন্তা চেতনার লক্ষে দোহার-নবাবগঞ্জ তথা এর আশপাশের এলাকায় একটি আন্তর্জাতিক মানের সম্মেলন কেন্দ্র নির্মান করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। যার জন্য ৫০ বিঘা জমির প্রয়োজন। যা এশিয়ার সর্ববৃহৎ সম্মেলন কেন্দ্রে রুপান্তরিত হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামীলীগের জাতীয় কমিটির সদস্য আব্দুল বাতেন মিয়া, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেওয়ান মাহবুবুর রহমান, তোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, তোজাম্মেল হোসেন চৌধুরী বাবর মিয়া, ঢাকা জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন ঝিলু, বারুয়াখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুন খান, ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলীমোর রহমান খান পিয়ারা, জয়কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন প্রমূখ।

Comments

comments