সুতারপাড়া ইউনিয়নে স্বরণকালের শ্রেষ্ঠ নির্বাচন হয়েছেঃ শেখ নাসির উদ্দিন

149
সুতারপাড়া ইউনিয়নে স্বরণকালের শ্রেষ্ঠ নির্বাচন হয়েছেঃ শেখ নাসির উদ্দিন

বিগত ২ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়া সুতারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে স্মরণকালের সবচেয়ে সুষ্ঠ, অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন হিসাবে দাবি করেছেন নব-নির্বাচিত সুতারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সুতারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ নাসির উদ্দিন। সোমবার দোহার প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান শেখ নাসির উদ্দিন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ০২/১১/২০২২ তারিখে স্বরণকালের শ্রেষ্ঠ, অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়ে গেল। এই নির্বাচনে আমি শেখ নাসির উদ্দিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিযোগীতা করে বিজয়ী হই। আমার সাথে একজন মহিলা প্রার্থী সহ মোট ০৮ (আট) জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিযোগীতা করে। ইলেকশন চলাকালিন সময়ে ০২ (দুই) জন স্বতন্ত্র প্রার্থী নানা ভাবে আমার কর্মীদের হুমকি ধামকি দিয়ে ভয়-ভীতি দেখিয়ে নির্বাচনী প্রচার কাজে বাধার সৃষ্টি করেছে। বিভিন্ন সময়ে নির্বাচনের দায়িত্বে নিয়োজিত রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং দোহার থানায় অভিযোগ করেছি, কোন প্রতিকার পাইনি। অজ্ঞাত কারণে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ন্যায় সংঙ্গত সহযোগীতা না পেয়ে অনেক কিছু সহ্য করে নির্বাচন সম্পূর্ণ করি। জনগন নৌকার পক্ষে রায় দেয়। আমি সুতারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই। সমস্ত জনগন, নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তাবৃন্দ, এমন কি প্রার্থীরা ও তাদের সমর্থকবৃন্দ এক কথায় আপামর জনগোষ্ঠী এই নির্বাচনের প্রশংসা করেছে। প্রিন্ট মিডিয়া এবং ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় যারা কাজ করেছেন তারা এই নির্বাচন স্বচক্ষে প্রত্যক্ষ করেছেন। নির্বাচন শেষ হওয়া পর্যন্ত কারো কোন অভিযোগ ছিল না, প্রার্থীরা সবাই নির্বাচন সুষ্ঠ হয়েছে একথাই বলেছেন। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক ভাবে সবাই দেখেছেন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার একদিন পর পরাজিত প্রার্থীরা সাংবাদিক সম্মেলন করে নির্বাচন কে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেষ্টা করেছেন। যা গণতন্ত্রের পরিপন্থি পেশিশক্তির অহমিকা ছাড়া আর কিছু নয়, জনগন সত্যটা জানেন আর সত্যের জয় হবেই হবে। সাংবাদিক সম্মেলনও খুবই সস্তা হয়ে গেছে বলে মনে হয়, কোনটা সত্য কোনটা মিথ্যা সে গুলো নিজের স্বচক্ষে প্রত্যক্ষ করার পর যদি কেউ সেটাকে মিথ্যা প্রমানিত করার জন্য সাংবাদিক সম্মেলণ করে, জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করার অপচেষ্টা করে, তাদের প্রচারের বাহন সংবাদপত্র জগত হতে পারেনা। এমন কি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং সকল প্রকার সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত সংবাদ বস্তুনিষ্ঠ ও সত্য হলে জনগন উপকৃত হবে এবং সংবাদ মাধ্যমের প্রতি জনগেনর আস্থা বেড়ে যাবে। ঘৃণ্য চক্রান্তকারীরা জনগনকে বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলার জন্য নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনার পর সাংবাদিক সম্মেলন করে তারা নিজেদের অর্বাচিন হিসেবে পরিচিত করেছে। জনগনের রায় মেনে নেওয়ার সুস্থ মন-মানুষিকতা তাদের নেই। আমি এই মিথ্যা বিভ্রান্তি ছড়ানোর বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

অন্য খবর  দোহারে আসছে নতুন বাস সার্ভিস ‘নিউ টমটম পরিবহণ’

মন্তব্য