দোহারে পানিতে ডুবলো চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী

265

ঢাকা দোহার উপজেলা লটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠের সাথে থাকা খালের ঘাটলায় গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয় রাহাত (৯)। তার পিতার নাম খলিল চোকদার।

পরিবারের স্বজনেরা অনেক খোজাখুজির পর না পেয়ে পরে তারা দোহার থানা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেন। পরে ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরী দল এসে অনেক সময় ধরে অনুসন্ধান করে রাহাতের লাশ উদ্ধার করে। এ সময় রাহাতের পরিবারের স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে পরিবেশ।

রাহাতের বাবা খলিল চোকদার বলেন, আমার ছেলে নদীতে গোসল করতে যায়। আমি বাড়িতে ছিলাম না। আমি বাসায় এসে জিজ্ঞেস করি আমার ছেলে কোথায়। না পেয়ে খোজাখুজি করে খালের দিকে গেলে আমি আমার ছেলের জুতা ঘাটে দেখতে পাই। তখন আমি বুঝতে পারি, আমার ছেলে এখানেই আছে। আমার ছেলে বিলের পাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণিতে লেখাপড়া করতেন।

কোন মিসিং ডাইরি বা অভিযোগ করছেন কিনা এমন প্রশ্নে উত্তরে মৃত রাহাতের বাবা বলেন,আমি আর কি অভিযোগ করুম! আমার ছেলেতো চলেই গেলো। আমি এখানে লটাখোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের পিছনে মাস চারের ধরে শাহাজাহান এর বাড়িতে ভাড়া থাকি। আমার দেশের বাড়ি শরিয়তপুর।

অন্য খবর  দোহারে লকডাউনের প্রথম দিনে প্রশাসনের কঠোর নজরদারি

ফায়ার সার্ভিসের লিডার আব্দুল হাদি বলেন, আমরা যাওয়ার পরে জানতে পারি যে একটি শিশু গোসল করতে এসে পানিতে ডুবে গেছে। পাশেই একটি ছেলে ছিলো, সে কিছু বুঝতে পারেনি। ডুবে যাওয়ার পর এলাকাবাসী খোজাখুজি পর আমাদের কে খবর দেয়। তারপরে কিছুক্ষন খোজাখুজি পরই রাহাতের মৃতদেহ আমরা উদ্ধার করি। লাশ উদ্ধার করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য