কেরানীগঞ্জে ক্ষেতে দোহারের যুবকের লাশ

650
নবাবগঞ্জে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

কেরানীগঞ্জের তারানগর ইউনিয়নের উত্তর ভাওয়াল এলাকার একটি ক্ষেত থেকে মিলন (৩০) নামে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। মিলন পেশায় ছিলেন একজন হোটেল কর্মচারী। তার বাড়ি দোহার উপজেলায়। করোনা মহামারীর কারণে তিনি বেকার হয়ে পড়েছিলেন। তার স্ত্রী সৌদি আরব প্রবাসী।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন আটিবাজার পুলিশ ক্যাম্পের এসআই  মো. খায়রুজ্জামান জানান, নিহতের গলায় দাগ রয়েছে। শরীরের আরও কোথাও আঘাত বা ক্ষতের চিহ্ন নেই। এতে ধারণা করা হচ্ছে শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।

নিহতের মা হাজেরা বেগম জানান, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মিলন বাসা থেকে বের হয়। রাতে সে বাসায় ফেরেনি। সকালে তিনি ছেলের মৃত্যুর সংবাদ পান।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম জানান, মিলনের বাড়ি ঢাকার দোহার উপজেলায়। তার স্ত্রী সৌদি প্রবাসী। দুই সন্তান নিয়ে তিনি ঘটনাস্থলের আধা কিলোমিটার দূরের একটি বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকেন। দুই সন্তানের মধ্যে এক ছেলে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। আর মেয়ের বয়স ৫।

অন্য খবর  দোহার নবাবগঞ্জে বাল্য বিবাহ হয় কোর্টে

ওসি আরও জানান, মিলন ওই এলাকার একটি হোটেলের কর্মচারী ছিলেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে হোটেল বন্ধ হয়ে গেলে তিনি বেকার হয়ে পড়েন।

Comments

comments