লিবিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

249

নিউজ৩৯♦ লিবিয়া সরকার দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। সমুদ্র পথে অবৈধ ভাবে ইউরোপে পাড়ি জমানো ঠেকাতে লিবিয়া সরকার এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। শনিবার বিশ্ব সম্প্রদায় স্বীকৃত সরকারের এক মুখপাত্র এ ঘোষণা দেয়।

সম্প্রতি লিবিয়া হয়ে সমুদ্র পথে হাজার হাজার অভিবাসী ইউরোপ যাত্রা নিয়ে ওই অঞ্চলে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়ে। নিয়ে অবৈধ পথে ইউরোপ যাত্রা ঠেকাতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা কয়েক দফা বৈঠকও করেছে। আফ্রিকার উত্তরাঞ্চলের ভূমধ্যসাগর তীরবর্তী দেশটির সরকারের একজন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম রবিবার এ খবর জানিয়েছে।

স্বৈরশাসক মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের পর ব্যাপক সহিংসতায় রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনা ভেঙে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানবপাচারকারীদের অভয়ারণ্যও হয়ে উঠেছে লিবিয়া। দেশটির উপকূল ঘেঁষেই সাধারণত ইতালি, গ্রিস, ফ্রান্সসহ ইউরোপের দেশগুলোতে পাড়ি জমানোর চেষ্টা করে অবৈধ অভিবাসীরা।

দেশটির সরকারের মুখপাত্র হাতেম উরাইবি বলেন, বাংলাদেশি শ্রমিকদের লিবিয়ায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। তারা এখানকার কারখানাগুলোতে কাজ করতে এলেও পরে অবৈধ পথে ইউরোপে পাড়ি জমানোর চেষ্টা করে। এ নিষেধাজ্ঞা অবৈধ অভিবাসনের বিরুদ্ধে সরকারের প্রচেষ্টারই অংশ। পূর্বাঞ্চলভিত্তিক এ সরকারের নিষেধাজ্ঞা পূর্বাঞ্চলেরই স্থল সীমান্ত, নদী, সমুদ্র ও বিমানবন্দরে বলবৎ থাকবে। এর বেশি বিস্তারিত জানাননি সরকারের এ মুখপাত্র।

অবশ্য, রাজধানী ত্রিপোলিসহ বেশ কিছু অঞ্চল বিভিন্ন মিলিশিয়া বাহিনীর হাতে দখল হয়ে থাকায় সেখানে সরকারের এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকরের ব্যাপারে সন্দেহ প্রকাশ করা হচ্ছে। তাছাড়া, বিশ্ব সম্প্রদায় স্বীকৃত এ সরকারের পশ্চিমাঞ্চলে কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই, অথচ ওই অঞ্চলের উপকূল থেকেই ইউরোপ অভিমুখে অভিবাসীদের ছেড়ে দেয় মানবপাচারকারীরা।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর বলছে, চলতি বছর এখন পর্যন্ত ৫১ হাজার অভিবাসী অবৈধ পথে ইউরোপে পাড়ি জমিয়েছে। এদের বেশিরভাগই আফ্রিকা ও এশিয়ার দারিদ্র্যপীড়িত দেশগুলোর নাগরিক।

Comments

comments