দোহারে ইতিহাস সৃষ্টিকারী মানবন্ধন: পদ্মায় চাই বাঁধ

219

নিউজ৩৯.নেট ♦ “জাগোরে জাগো, দোহারবাসী জাগো,

যদি থাকো ঘুমিয়ে 

দোহার-নবাবগঞ্জ যাবে তলিয়ে”

এই শ্লোগানে মুখরিত হয়েছিল আজ দুপুরে ঢাকার দোহার উপজেলার প্রাণকেন্দ্র জয়পাড়ার প্রধান সড়ক। দোহার ও নবাবগঞ্জে পদ্মার ভাঙনের স্থায়ী সমাধানের দাবীতে উপজেলায় রেকর্ড সৃষ্টিকারী জনগণের অংশগ্রহণে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করে স্থানীয় তরুণদের সামাজিক সংগঠন ‘দোহার-নবাবগঞ্জ সোশ্যাল মুভমেন্ট’। 

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী জয়পাড়ায় উপজেলা কার্যালয়ের ফটকের সামনে প্রধান সড়কে বেলা এগারোটায় শুরু হয় মানবন্ধন এবং তা এক ঘন্টা স্থায়ী হয়ে শেষ হয় বেলা বারোটায়। উৎসাহী জনগন সকাল দশটার আগে থেকে এসে জড়ো হতে থাকে।

বর্ষার শুরুতে ভাঙন শুরু হয়ে তা তীব্র আকার ধারণ করলে দোহার-নবাবগঞ্জের তরুণরা এর সমাধানের লক্ষ্যে ফেসবুকে কার্যক্রম শুরু করে। পরে তা আন্দোলনে রুপ নিয়ে ছড়িয়ে পড়ে দোহার-নবাবগঞ্জের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে, যুক্ত হয় সর্ব স্তরের সাধারণ মানুষ।  

মানববন্ধনে অংশ নেন বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানগণ, জয়পাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা। মিছিল নিয়ে এসে যুক্ত হয় ভাঙন কবলিত এলাকার বাসিন্দারা। আট শতাধিক মানুষের অংশগ্রহণে মানববন্ধন  জয়পাড়া চৌরাস্তা থেকে জয়পাড়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত দুই সারি করে দির্ঘায়িত হয়।

দোহার-নবাবগঞ্জ সোশ্যাল মুভমেন্ট

মানববন্ধনে উপস্থিত ব্যক্তিরা বলেন, পদ্মা নদীর তীব্র ভাঙনে , নবাবগঞ্জ উপজেলার বালেঙ্গা, দোহারের নারিশা, নারিশা পশ্চিমচর, রানীপুর, কার্ত্তিকপুর, বাহ্রাঘাট, ধোয়াইর এলাকার হাজার হাজার বাড়িঘর বিলুপ্ত হয়ে গেছে। রানিপুর আর মধুরচর প্রায় নিঃশেষ। এ যাবত প্রায় ২০ হাজার পরিবার নিঃস্ব হয়েছে। বাড়ি-ঘর হারা মানুষ পথে-ঘাটে মানবেতর জীবন যাপন করছে। পদ্মা ভাঙন কবলিত এলাকায় বাঁধ নির্মাণের বিষয়ে এমপি, মন্ত্রী, এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী ওয়াদা থাকা সত্বেও আজ অবধি তা বাস্তবায়িত হয় নি। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্বারকলিপি দিয়েছি। তারা আরো বলেন, পদ্মায় বাঁধ নির্মাণ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

দোহার-নবাবগঞ্জ সোশ্যাল মুভমেন্ট

দোহার-নবাবগঞ্জ সোশ্যাল মুভমেন্ট

ছবি: ইমরুল হাসান

Comments

comments