২০২৬ সালের বিশ্বকাপ আয়োজক হতে ৪১টি শহরের আবেদন

আগামী ২০২৬ ফুটবল বিশ্বকাপের ম্যাচ আয়োজনে কানাডা, মেক্সিকো ও যুক্তরাষ্ট্রের ৪১টি শহরের পক্ষ থেকে আবেদন পত্র জমা পড়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

‘গ্রেটেস্ট শো অন দ্য আর্থের’ আয়োজক হওয়ার জন্য ইতোমধ্যে উত্তর আমেরিকার তিনটি দেশ যৌথভাবে আবেদন করেছে। তাদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে শুধুমাত্র মরক্কো। যে কারণে আয়োজনের দৌঁড়ে আমেরিকা অঞ্চলকেই বেশি ফেভারিট হিসেবে ধরা হচ্ছে।

যৌথ আয়োজক দেশের ৪১টি শহর এরই মধ্যে চূড়ান্ত আবেদন পত্র জমা দিয়েছে। তিনটি শহর সান দিয়াগো, গ্রীন বে এবং ক্যালাগরি সময় মত আবেদন করতে ব্যর্থ হওয়ায় তাদেরকে আবেদনপত্র জমা দেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

ফিফার কাছে দেয়া আবেদন পত্রে যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা ও মেক্সিকোর ২০ থেকে ২৫টি ভেন্যুর তালিকা চূড়ান্ত করে জমা দেয়া হয়েছে। তারমধ্যে ১২টি ভেন্যুকে প্রাথমিকভাবে বাছাইও করা হয়েছে। সর্বোচ্চ ৪৮ দেশ নিয়ে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিতব্য এ টুর্নামেন্টের খেলা আয়োজনের জন্য ওই ভেন্যুগুলোকেই অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রাধান্য দেয়া হবে।

আবেদনকারী কমিটির নির্বাহী পরিচালক জন ক্রিস্টিক বলেন, ‘আমাদের আবেদন পত্র গৃহীত হওয়ায় আমরা দারুণভাবে রোমাঞ্চিত, বিশেষ করে প্রতিটি শহরেরই প্রতিশ্রুতি গঠনমূলক এবং নির্ভরযোগ্য। যে শহরগুলো ম্যাচ আয়োজনের জন্য বিবেচনায় আনা হবে না সেগুলোকে টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর অনুশীলন ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করা হবে বলে কমিটির এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

অন্য খবর  মাশরাফি চিন্তিত ব্যাটিং নিয়ে

আবেদনকারী কমিটির কর্মকর্তারা জানান, উত্তর আমেরিকার তিন দেশ আয়োজক হিসেবে ছাড়পত্র পেলে টুর্নামেন্টের ৬০টি ম্যাচ আয়োজিত হবে যুক্তরাষ্ট্রে। আর কানাডা ও মেক্সিকো আয়োজন করবে ১০টি করে ম্যাচ। নকআউট পর্ব বিশেষ করে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ফাইনাল ম্যাচের সবগুলো আয়োজিত হবে যুক্তরাষ্ট্রে। বাসস।

Comments

comments