স্মার্টফোনের বাজার নিম্নমুখী
বিজ্ঞাপন

২০১৮ সালের প্রথম তিন মাসে বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের বাজার নিম্নমুখী রয়েছে। গত বছরের প্রথম তিন মাসের তুলনায় এ বছরের একই সময়ে স্মার্টফোনের আমদানি-রফতানি কমেছে ২ দশমিক ৯ শতাংশ।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইডিসি বলছে, স্মার্টফোন বিক্রেতারা এ বছরের প্রথম তিন মাসে ৩৩ কোটি ৪৩ লাখ ফোন আমদানি-রফতানি করেছে। গত বছরে একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৩৪ কোটি ৪৪ লাখ।

আইডিসির বিশ্লেষণ বলছে, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজার নিম্নমুখী হওয়ার মূল কারণ হলো চীন। দেশটি স্মার্টফোনের আমদানি-রফতানি কমিয়ে দেওয়ায় বিশ্ব বাজারে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ বছরের প্রথম তিন মাসে ১০ কোটিরও কম স্মার্টফোন বাণিজ্য করেছে চীন। ২০১৩ সালের তৃতীয় ত্রৈমাসিকের পর প্রথমবার এমন ঘটনা ঘটলো।

তবে স্মার্টফোনের উচ্চ মূল্যকেও বিশ্বব্যাপী এর বাণিজ্য কমে যাওয়ার মূল কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। এ সম্পর্কে আইডিসি-এর রিসার্চ ম্যানেজার অ্যান্থনি স্কারসেল্লা বলেন, ‘গ্রাহকদের হাতে বর্তমানে যে ডিভাইস রয়েছে, তার সামান্য একটু আপগ্রেডেড ভার্সন কেনার জন্য অর্থ খরচ করতে খুব বেশি আগ্রহী নন তারা।’

আইডিসির গবেষণায় স্মার্টফোন বাজারের শীর্ষ ব্র্যান্ডগুলোর নামও উঠে এসেছে। প্রতিষ্ঠানটির তথ্যমতে, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের শীর্ষে রয়েছে স্যামসাং। যদিও ২০১৭ সালের তুলনায় এবছর ২ দশমিক ৪ শতাংশ শেয়ার কমেছে প্রতিষ্ঠানটির। বর্তমানে স্মার্টফোন বাজারে স্যামসাংয়ের শেয়ারের পরিমাণ ২৩ দশমিক ৪ শতাংশ।

অন্য খবর  শিগগিরই বাজারে আসছে স্যামসাং গ্যালাক্সি ফিল

স্মার্টফোন বাজারের দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে অ্যাপল। এ বছরের প্রথম তিন মাসে আইফোনের বিক্রি বেড়েছে ২ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৮ সালের প্রথম তিন মাসে ৫ কোটি ২২ লাখ আইফোনের বাণিজ্য হলেও গত বছর একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৫ কোটি ৮ লাখ।

স্মার্টফোন বাজারের তৃতীয় অবস্থানে আছে হুয়াওয়ে। বাজারে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার ১১ দশমিক ৮ শতাংশ। ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকায় হুয়াওয়ের স্মার্টফোন বিভিন্ন দেশে বেশ জনপ্রিয়। বিশেষ করে স্পেন, জার্মানি এবং ইতালির গ্রাহকরা এই ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন বেশি পছন্দ করেন।

বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারের চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে শাওমি। এর মূল কারণ, চীনের বাইরে প্রতিষ্ঠানটির বাজার সম্প্রসারিত হচ্ছে। বিশেষ করে ভারত-বাংলাদেশসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় শাওমির জনপ্রিয়তা বাড়ছে। এ ছাড়াও বিশ্বের আরও অনেক দেশের স্মার্টফোন বাজারে প্রবেশ করেছে শাওমি।

স্মার্টফোন বাজারের পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে ওপ্পো। বছরের পর বছর ধরে তাদের ব্যবসার পরিমাণ কমছে। যদিও এ বছরের প্রথম ত্রৈমাসিকে বাণিজ্যের পরিমাণ বেড়েছে তাদের।

Comments

comments