সোনিয়াকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী সামছুদ্দিন; আদালতে জবানবন্দি

390

নবাবগঞ্জ উপজেলার বহুল আলোচিত সোনিয়া হত্যার রহস্য উদঘাটন হয়েছে। ‘পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামী সামছুদ্দিনই বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে সোনিয়াকে’ গতকাল বুধবার দুপুরে আদালতে ১৬৪ ধারায় এমনি স্বীকার উক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে সোনিয়ার স্বামী সামছুদ্দিন।

নিহত সোনিয়া কলাকোপা ইউনিয়নের সমসাবাদ গ্রামের মো. মহসিনের মেয়ে। সামছুদ্দিন উপজেলার যন্ত্রাইল গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে। তারা বান্দুরা ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামের এলবার্ট গমেজের বাড়ীতে ভাড়া থাকতেন। ঐ বাসা থেকেই পুলিশ সোনিয়ার ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে।

জবানবন্দির বরাতে নবাবগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক মো. কামরুল ইসলাম জানান, দুজনেরই এটি ২য় বিয়ে ছিল। সামছুদ্দিনের প্রথম স্ত্রী বা পরিবারের সাথে যোগাযোগ না রাখা, সম্পত্তি এবং ব্যবসার অংশীদারিত্ব নিয়ে দু’জনের মাঝে বিবাদ চলছিল। ঘটনার দিন ১১ জুলাই মঙ্গলবার রাতে এসব বিষয়ে কলহের জের ধরে স্বামী সামছুদ্দিনই বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে সোনিয়াকে। পরে তার লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

নবাবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তফা কামাল বলেন, গত পরশু (সোমবার) সামছুদ্দিন আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিনের আবেদন করেন। পরে আদালত তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। পরে মঙ্গলবার থানা পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনদিনের রিমান্ডে আনে। বুধবার দুপুরে আদালতে স্বীকারউক্তিমূলক জবানবন্দি দিলে তাকে আদালত জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

অন্য খবর  নবাবগঞ্জে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

Comments

comments