টানা তিন হারের পর অবশেষে জয়ের মুখ দেখলো খুলনা টাইটানস। বুধবার সিলেট সিক্সার্সকে ২১ রানে হারিয়েছে মাহমুদউল্লাহরা। সব মিলিয়ে চলতি বিপিএলে দ্বিতীয় জয়ের দেখা পেল খুলনা। তাতে অবশ্য অবস্থার খুব বেশি উন্নতি হয়নি। ৪ পয়েন্ট নিয়ে তাদের শেষ চারে থাকার সম্ভাবনা আছে সামান্যই।

গত কয়েক ম্যাচ ধরে ‍ব্যাটিংয়ে দারুণ পারফর্ম করেছে খুলনা। কিন্তু বোলিং ও ফিল্ডিং ঠিকঠাক না হওয়ায় হার নিয়ে ছাড়তে হয়েছে মাঠ। সিলেটের বিপক্ষে ব্যর্থতার সেই বৃত্ত ভেঙে জয়ে ফিরেছে খুলনা। প্রথমে ব্যাট করে খুলনা নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেটে করে ১৭০ রান। জবাবে সিলেট ৭ উইকেটে করতে পারে ১৪৯ রান।

মোহাম্মদ নওয়াজ ৩৪ বলে ৫৪ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেও জেতাতে পারেননি সিলেটকে। তাইজুল ইসলামের সঙ্গে খুলনার অন্য বোলাররা জ্বলে উঠলে সুবিধা করতে পারেননি সিলেটের ব্যাটসম্যানরা। তাইজুলের শিকার ৩ উইকেট। একটি করে উইকেট নিয়েছেন জুনায়েদ খান, শুভাশীষ রায়, ডেভিড উইজ ও ইয়াসির শাহ।

লিটন দাস শূন্য রানে আউট হওয়ার পর সাব্বির আউট হন ১৩ রানে। আফিফের ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান। চারে নামা অলক কাপালি করেন ১১ রান। ৫৬ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে সিলেট লাইনচ্যুত হলেও তাদের পথে ফেরান নওয়াজ ও নিকোলাস পুরান। তাদের ব্যাটে জয়ের সম্ভাবনাও তৈরি করেছিল সিলেট। যদিও পুরান ২১ বলে ২৮ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরলে সেই সম্ভাবনা শেষ হয়ে যায়। খানিক পর নওয়াজ ৩৪ বলে ২ চার ও ৪ ছক্কায় ৫৪ রানের ইনিংস খেলে প্যাভিলিয়নে ফিরলে জয়ের সুবাস পেতে থাকে খুলনা।

অন্য খবর  কুমিল্লাকে হারিয়ে ফাইনালে ঢাকা ডায়নামাইটস

শেষ পর্যন্ত ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে তিন ম্যাচ পর জয়ের পথে ফেরে খুলনা। তাদের শেষ চারে থাকার সম্ভাবনা একরকম শেষ হয়ে গেলেও পয়েন্ট টেবিলের হিসাব বলছে, নিজেদের সব ম্যাচ খুলনা জিতলে ও অন্য দলগুলো সব ম্যাচ হারলে এবং নেট রানরেট বেশি থাকলে শেষ চারে দেখা যেতে পারে মাহমুদউল্লাহদের।

খুলনা অধিনায়ক নিজে অবশ্য আশা ছেড়ে দিয়েছেন। বাকি থাকা সব ম্যাচ জেতাই তার লক্ষ্য। সেই লক্ষ্যের পথে প্রথম ম্যাচটি জয় দিয়ে শেষ করেছে তারা।

Comments

comments