সালমান শাহ হত্যা মামলা: রিভিশন বৃত্তে ১৪ মাস

838
সালমান শাহ হত্যা মামলা

জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সালমান শাহ হত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম থমকে আছে। মামলাটি আদালতের রিভিশন বৃত্তেই আটকা পড়ে আছে ১৪ মাস যাবত। বৃহস্পতিবার এ মামলাটির পুনঃরিভিশন শুনানির জন্য দিন ধার্য্য ছিল। কিন্তু রাষ্ট্রপক্ষ শুনানির জন্য প্রস্তুত নয় মর্মে সময়ের আবেদন করলে বিচারক ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬ এর বিচারক কেএম ইমরুল কায়েস ৪ আগষ্ট পরবর্তী দিন ঠিক করেন। সময়ের আবেদন করেন ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু।

মামলাটিতে র‌্যাবকে তদন্ত দেওয়ার আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ গত বছরের ১৯ এপ্রিল মহানগর দায়রা জজ আদালতে একটি রিভিশন মামলা দায়ের করেন। আর এই রিভিশন মামলার শুনানিতেই কেটে গেছে গত ১৪ মাস। বাদী পক্ষে এ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান শওকত ও ফারুক হোসেন এবং অ্যাডভোকেট মাহফুজ মিয়া শুনানি করেন।

এদিকে এ হত্যা মামলার ন্যায় বিচারের দাবিতে মহানগর দায়রা জজ আদালতের সামনের চত্বরে মিছিল করেছে আদালতে আসা সালমান শাহর ভক্তগন। তারা জানতে চেয়েছে, এ মামলার শেষ কোথায়?

এর আগে, প্রায় ১৫ বছর ধরে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে সিএমএম আদালত সালমান শাহর বাবা কমর উদ্দিন ও মা নিলুফার চৌধুরী ওরফে নিলা চৌধুরীসহ ৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে। ২০১৪ সালের ৮ ডিসেম্বর অভিযোগ প্রমানিত হয়নি মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই বছর ২১ ডিসেম্বর নিলুফার চৌধুরী ওরফে নিলা চৌধুরী আদালতে হাজির হয়ে নারাজী দাখিলের জন্য সময় প্রার্থনা করেন।

অন্য খবর  ১৩ এপ্রিল নাইকো দুর্নীতি মামলায় খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

নীলা চৌধুরী নারাজীতে মাফিয়া ডন আজিজ মোহাম্মাদ ভাইসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। অপর ১০ জন হলেন, সালমান শাহের স্ত্রী সামিরা হক, সামিরার মা লতিফা হক লুসি, রেজভী আহমেদ ওরফে ফরহাদ, এফ ডিসির সহকারী নিত্য পরিচালক নজরুল শেখ, ডেভিড,আশরাফুল হক ডন, রাবেয়া সুলতানা রুবি, মোস্তাক ওয়াইদ, আবুল হোসেন খান ও গৃহপরিচারিকা মনোয়ারা বেগম।

বিচার বিভাগীয় তদন্তের ওপর এ নারাজীর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিএমএম আদালত র‌্যাবকে মামলাটি পুনঃতদন্তের নির্দেশ দেন। এ আদেশের পরপরই ফের আলোচনায় আসে সালমান শাহর এই মর্মান্তিক মৃত্যু। আদালতের ওই আদেশের বিরুদ্ধেই এ রিভিশন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

Comments

comments