মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে দুই সেতুর বেহাল দশা

513

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার ইছাপুরা-মালখানগর সড়কের মোস্তফাগঞ্জ ও পূর্ব-কাকালদী এলাকায় জোড়াতালির দুটি বেইলি সেতু দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন ও লোকজন। ফলে এ সেতু দুটি এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। স্থানীয়দের আশঙ্কা- এই দুই বেইলি সেতুতে যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

সিরাজদিখান শ্রীনগর উপজেলা থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলা শহরে প্রবেশের একমাত্র সড়কটির ২৫ বছরেরও বেশি পুরনো এ দুই সেতু এখন কোনোরকমে জুড়াতালি দিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। এ দুটির উপর দিয়ে প্রতিদিন মুন্সীগঞ্জ, টঙ্গিবাড়ি, লৌহজং, শ্রীনগর, সিরাজদিখানসহ কয়েকটি এলাকার মানুষ ঢাকার সাথে সড়কপথে যাতায়াতে এই দুই সেতু সব সময় ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু উপায় না থাকায় চরম ঝুঁকি নিয়েই এ সেতু দুইটি দিয়ে প্রতিদিনই যাতায়াত করছে স্থানীয় লোকজন ও অনেক যানবাহন। সড়ক ও জনপদ বিভাগ সেতুর উপর পাঠাতন কিছুদিন পরপর ঝালাই দিয়ে জোড়াতালির মাধ্যমে সড়ক ও যোগাযোগ ব্যবস্থা সচল রাখার চেষ্টা চালিয়ে আসছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ছোট বড় মিলিয়ে  উপজেলার ১০টি পাকা ও তিনটি বেইলি সেতুর বর্তমান অবস্থা নাজুক। এর মধ্যে মোস্তফাগঞ্জ ও পূর্বকাকালদী এলাকার বেইলি সেতু  দুটির অবস্থা বিপজ্জনক। ইছাপুরা ইউনিয়নের পশ্চিম শিয়ালদী গ্রামের তানবীর আহম্মেদ, পূর্ব কাকালদী গ্রামের মোখলেছুর রহমান,একই গ্রামের আনছার আলী জরুরি ভিত্তিতে সেতু দুটির  নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন। মধ্যপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল করিম শেখ নিউজ ৩৯ কে জানান, সেতু দুইটি নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর বহুদিনের। জরুরিভাবে সেতু করা না হলে যে কোনো মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

অন্য খবর  সিরাজদিখানে প্রবাসীর স্ত্রীর আত্মহত্যা

এ নিষয়ে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ, মুন্সীগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলীর মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার যোগাযোর করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানবীর মোহাম্মদ আজিম নিউজ ৩৯ কে বলেন, “সওজের মুন্সীগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলীকে বিষয়টি  জেলা সমন্বয় সভায় জানানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুতই ব্রিজ দুটি সংস্কারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে”।

 

Comments

comments