ভূত নগরে ভালোবাসা দিবসের ইতিহাস

52
রনি, ভূত রাজদেরও মহারাজ। কলংকপূর নামের একটি ভূত রাজ্যের ও রাজা সে। এছাড়াও আরো বেশ কিছু ভূত রাজ্যের রাজারা তাকে সকল ভূত সম্প্রদায়ের

রনি, ভূত রাজদেরও মহারাজ। কলংকপূর নামের একটি ভূত রাজ্যের ও রাজা সে। এছাড়াও আরো বেশ কিছু ভূত রাজ্যের রাজারা তাকে সকল ভূত সম্প্রদায়ের মহারাজা হিসেবেই মানে। কলংকপূরের রাজদরবারে এক রুদ্ধশ্বাস বৈঠক চলছে। বৈঠকের মূল বিষয় হচ্ছে ভ্যালেনটাইন ডে। ভূতেরা যখন পৃথিবীতে ছিলো তখন কতই না আনন্দে ভ্যালেন্টাইন ডে পালন করতো। আর এখন ? এখন তো তাদের মধ্যে ভালোবাসাই হয় না। তো কিসের আবার ভ্যালেন্টাইন ডে। অন্যান্য রাজারা মহারাজের উপর তিব্র খোব পূষে রেখেছেন। কারন মহারাজা তাদের অন্য সব কিছুর ব্যাবস্থা করলেও ব্যাবস্থা করেনি কোন ভালোবাসার।
রাজা অনুপঃ মহারাজ রনি, আমরা আপনাকে যথেষ্ট পরিমান সম্মান করি। আপনি আমাদের প্রায় সকল চাহিদাই পূরন করেছেন। কিন্তু
মহারাজ রনিঃ কিন্তু কি?
রাজা অনুপঃ কিন্তু আমাদের ভালোবাসা পাওয়া বা দেবার কোন ব্যাবস্থা করেননি।
রাজা আদিত্যঃ ভালোবাসা ছাড়া সকল কিছু বৃথা। আমাদের এবং আমাদের ভূত প্রজাদের ভালোবাসার প্রয়োজন।
মহারাজ রনিঃ তো এখন আমি কি করতে পারি?
রানী অধরাঃ দেখুন মহারাজ কিভাবে আমাদের ভালোবাসা দেবার ব্যবস্থা করবেন সেটা আপনি জানেন। সঙ্গী ছাড়া সবকিছু পানসে লাগছে। আর ভালো লাগছে না। আপনি ব্যাবস্থা করে দিন। আর যদি না পারেন তাহলে বলে দিন। আমরা চলে যাই।
মহারাজ রনিঃ কোথায় যাবে ? আমি তোমাদের জন্য এতোকিছু করলাম আর তোমরাই কিনা আজ আমাকে ছেড়ে যেতে চাইছো?
রাজা আদিত্যঃ দেখুন আমরা কখনই অস্বিকার করিনি যে আপনি আমাদের জন্য কিছু করেননি। যথেষ্ট করেছেন। কিন্তু ব্যার্থতাও কম নয়। মানুষ ভালোবাসা পায়, কিন্তু আমরা পাই না। মহারণী অদ্রীতা তম্রিশা তৃষা আমাদের কথা দিয়েছে তাকে আমরা মহারানী হিসেবে মেনে নিলে তিনি আমাদের ভালোবাসা দিবেন।
মহারাজ রনিঃ বাহ বাহ। আদিক্ষ্যেতা তামাশা তৃষাকে আপনারা অলরেডি মহারানী বানিয়েই ফেলেছেন, তো বসে আছেন কেনো? চলে যান আদিক্ষ্যেতা তামাশা তৃষার কাছে।
রানী অধরাঃ জ্বি। আমরা চলে যাচ্ছি। আপনি ভালো থাকবেন।
এরপর এক এক করে সব রাজারা মহারাজের দরবার থেকে বেরিয়ে যায়। রাজা কিছুক্ষণ চুপ করে বসে থেকে রুমে চলে যায়। রুমে গিয়ে এক প্রজাকে দিয়ে খবর পাঠায় ভূত ভূতজ্ঞানী তাহমিদকে। মহারাজ রনি তাহমিদকে খুব সম্মান করে। কোনরকম সমস্যার পরলেই ভূতজ্ঞানী তাহমিদকে সস্মানে ডেকে নিয়ে আসে। পৃথিবীতে বেঁচে থাকাকালিন সময়েও তাহমিদ রনিকে অনেকভাবে হেল্প করেছে।
ঐদিকে ভালোবাসা পাবার আশায় রাজা আদিত্য, অনুপ, নাজমুল, রানী অধরা সহ অন্যরাজারা বিভিন্ন রকমের মিষ্টি, হরেক রঙের ফূল নিয়ে মহারানী তৃষার কাছে আসে। তৃষা আগেই জানতো এরা আসবে। তৃষাও তার দরবার নানান রঙ এর ফুল দিয়ে সাজিয়েছে। তৃষা তাদের সাদরে গ্রহন করে নেন।
রানী অধরাঃ মহারানী তৃষা আমরা আপনার সান্যিধ্য পেয়ে ধন্য। আশাকরি খুব দ্রুত আমরা আমাদের ভালোবাসা পেয়ে যাবো।
মহারানী তৃষাঃ অবশ্যই আপনাদের মনের আশা পূরন করা হবে। চলুন আমার আতিথিয়েতা গ্রহন করবেন আপনারা।
এরপর সবাই তৃষার মুখোরুচক খাবারের আতিথেয়েতা গ্রহন করে। এরমধ্যে বেষ্ট ছিলো কচুর ভর্তা, তৃষা সেটা নিজ হাতে রান্না করেছে। খাবার দবার শেষ করে যে যার মত করে যার যার রাজ্যে ফিরে আসে। এবং তারা সবাই মহাখুশি যে ভ্যালেন্টাইনের আগেই ভালাবাসা বা সঙ্গী পেয়ে যাবে।
অন্যদিকে চিন্তিত মহারাজ রনি। তার এতোদিনের কষ্ট পরিশ্রমে গড়া সম্রাজ্য ভেংগে গেলো। এক পাজী, বদ মহিলার জন্য। এই মহিলা আসলে কি চায়? ভাবছে আনমনে রনি। ঠিক এই সময় এক প্রজা এসে খবর দেয় যে ভূতজ্ঞানী তাহমিদ এসেছেন। মহারাজ রনি নিজে যায় ভূতজ্ঞানী তাহমিদ এর কাছে। তাকে নিজে আবার তার নিজের রুমে নিয়ে আসেন।
ভূতজ্ঞানী তাহমিদঃ কোন সমস্যা রনি?
মহারাজ রনিঃ অনেক সমস্যা দাদা।
ভূতজ্ঞানী তাহমিদঃ কি সমস্যা বল?
মহারাজ রনিঃ অন্য রাজ্যের রাজাগন আমাকে ছেড়ে চলে গিয়েছেন। তাদের দাবি তাদের ভালোবাসা দেবার এবং পাবার ব্যাবস্থা করে দিতে হবে।
ভূতজ্ঞানী তাহমিদঃ দিস না কেন তাহলে ব্যাবস্থা করে?
মহারাজ রনিঃ দাদা কি যে বলো। ভালোবাসা কি ব্যাবস্থা করে দেওয়া যায়? এটা হয়ে যায়।
তাহমিদঃ বাহ! ভালো বলেছিস তো। তাহলে এক কাজ কর। তুইই বোঝা।
মহারাজ রনিঃ এভাবে বোঝাবুঝি করে হবে না।
তাহমিদ আর রনির কথা মাঝে হটাৎ হৈচৈ এর শব্দ শুনতে পায়। জানালার পাশে গিয়ে দেখে তার রাজ্যের প্রজাগন ভালোবাসা চাই, ভালোবাসা দিতে হবে, এই বলে স্লোগান দিচ্ছে।
মহারাজ রনিঃ দেখলে দেখলে পাগল গুলো কি করছে?
ভূতজ্ঞানী তাহমিদঃ শোন, তুই গিয়ে ওদের সামনে বল যে আগামী পরশুর মধ্যে তারা সবাই ভালোবাসা পেয়ে যাবে। প্রত্যেকে।
মহারাজ রনিঃ কি বলছো এই সব। আমি কিভাবে তারপর ম্যানেজ করে দিবো? আমি আমার প্রজাদের সাথে মিথ্যে বলি না।
ভূতজ্ঞানী তাহমিদঃ এতোবেশি বুঝিস কেন? যেটা বলছি সেটা কর।
মহারাজ রনি তার প্রজাদের সামনে গিয়ে দাঁড়ায়। এরপর ভূতপ্রজাদের উদ্যেশ্যে বলে যে দুই দিনের মধ্যে সে সকলকে ভালোবাসা দিবে। রাজার আশ্বাসে আশ্বস্ত হয়ে প্রজারা স্লোগান থামিয়ে ফিরে যায়।
রনি ফিরে আসলে তাহমিদ তাকে জানায় যে আগামীকালকের মধ্যে প্রত্যেক প্রজার কাছ থেকে ভূতডাটা নিতে। সে ভূতডাটায় তাদের প্রত্যেকের পছন্দ অপছন্দও উল্লেখ থাকতে হবে। এরপর তাদের ডাটা দেখে ম্যাচিং করিয়ে একজন পুরুষ এর সাথে একজন নাড়ী ভূতের বিয়ের ব্যাবস্থা কর। ব্যাস হয়ে গেলো।
মহারাজ রনিঃ বাহ! ব্যাপক আইডিয়া দিলে দাদা। আমি আজই সব ব্যাবস্থা নিচ্ছি।
তাহমিদ চলে যায়। দুইদিনের মধ্যে সব ভূত ডাটা সংগ্রহ করে এরপর এদের মধ্যে বিভিন্ন ম্যাচিং খুজে একজনের সাথে আরেকজনের বিয়ে দিয়ে দেওয়া হয়। সবাই খুশি।
ইতিমধ্যে এই খবর পৌছে গেছে সেই সকল রাজাদের কাছে যারা কিনা মহারাজ রনিকে ফেলে মহারানী তৃষার কাছে চলে গিয়েছিলো। তারা খবর শোনার সাথে সাথেই তৃষার কাছে আসে।
রাজা আদিত্যঃ মহারানী। আমরা যে আশায় আপনার কাছে এসেছিলাম তার কি ব্যবস্থা হলো?
মহারানী তৃষাঃ সব ব্যাবস্থা করছি। একটূ ধৈর্য ধরুন।
রানী অধরাঃ কোন ধৈর্য ধরাধরির মধ্যে আমি নেই। আগামীকালকের মধ্যে আমরা ভালোবাসা না পেলে পূনরায় আমরা মহারাজ রনির কাছে ফিরে যাবো।
রাজা অনুপঃ আমি তো বলি আজই চলে যাই।
রাজা নাজমুলঃ নাহ, আরেকদিন সময় দিলাম। নাহলে ফিরে যাবো।
মহারানী তৃষাঃ তোমরা তো দেখি বড়ই অকৃতজ্ঞ ভূত। স্বার্থের জন্য সব করতে পারো। আচ্ছা যাও আগামীকাল রাতে সবাই আসবে। সবাইকে ভালোবাসা দেওয়া হবে।
এরপর সবাই চলে যায়। পেছন থেকে সুন্দরী পড়ীদের রানী পড়ী তৃষার কাছে এসে বলে
রানী পড়ীঃ এতো টেনশন নিচ্ছো কেন বনু? আমি আছিতো।
মহারানী তৃষাঃ হ্যা। একটু বুদ্ধি দাওতো বনু।
রানী পড়ীঃ শোন বনু। তোমার আর আমার রাজ্যের যেসকল ভূত ভুতুরা রয়েছে তাদের সাথে ওদের রাজের ভুত ভূতুদের বিয়ে দিয়ে দেই।
মহারানী তৃষাঃ নাহ নাহ। ঐ খাটাশ রনিটা বলবে ওকে আমি কপি করেছি। সেটা হতে পারে না।
রানী পড়ীঃ ধুর বোকা মেয়ে। ওকে আমরা কপি করবো কেন? শুনো পাগলীটা। আমরা আমাদের প্রজাদের সাজিয়ে গুজিয়ে ওদের সামনে প্রেজেন্ট করবো। ওরা আমাদের প্রজাদের দেখে মুগ্ধ হবে। এরপর তারা পছন্দ মত বাছাই করে নিবে।
মহারানী তৃষাঃ ওয়াও বনু ওয়াও। তোর মাথায় যে এতো বুদ্ধি কোথা থেকে আসে সেটা বুঝিনা।
রানী পড়িঃ আমি কি সব ব্যাবস্থা নেওয়া শুরু করবো?
মহারানী তৃষাঃ আবার জিগায় দেহি। যাহ সব ব্যাবস্থা লো।
রানী পড়িঃ হাহাহাহাহাহাহাহাহা।
রানী পড়ি সব ধরনের ব্যাবস্থা নেয়। সকল ভূত ভুতুদের সাজিয়ে গুছিয়ে পরিপাটি করে রাখে। রাত হতেই চলে আসে রানী অধরা সহ বাকি রাজা ও তাদের ভূতপ্রজারা। মহারানী তৃষার এই আয়োজন দেখে, শুনে, বুঝে মুগ্ধ হয় তারা। ভালোবাসা পছন্দ মত বেছে নিতে পারবে। যেটা মহারাজ রনির সাথে থাকলে কখনই সম্ভব হতো না। কি একটা ঝুলিয়ে দিতো কে জানে।
সবাই লাইন ধরে যে যার মত বেছে নিচ্ছে। এরমধ্যে একজন ভুতু আছে যে কিনা সবচেয়ে সুন্দরী ভূতু। নাম হিয়া। তাকে দেখেই প্রায় জ্ঞ্যান হারিয়ে ফেলে অনুপ আর আদিত্য। জ্ঞ্যান ফিরিলে এদের মধ্যে প্রায় মারামারি শুরু হয় হিয়াকে নিয়ে। একসময় এই মারামারি দুই রাজ্যের মধ্যে সেখানে যুদ্ধের পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। সব আয়োজন লন্ডভন্ড হয়ে যায়। যে যার মত ছুটে পালায়।
মহারানী তৃষাঃ কি হলো এটা? এর জন্যেই বলে মেয়ে মানুষের বুদ্ধি শুনতে নেই।
রানী পড়িঃ আরে বাবা! এখন আমার দোষ? আমি কি জানতাম ওরা একজন নিয়ে দুইজনে কারাকারি করবে?
মহারানী তৃষাঃ এখন কি করা যায় সেটা বল?
রানী পড়িঃ আমি কি জানি? যাও কোন পুরুষের কাছ থেকে বুদ্ধি নিয়ে আসো।
মহারানী তৃষাঃ ঠিক। তুই এখনি যাবি পৃথিবীতে। খুজে বের করবি একজন রোমান্টিক পুরুষকে। তারপর ধরে নিয়ে আসবি। সেই বুদ্ধি বাতিয়ে দিবে যে কি কি করতে হবে।
রানী পড়ী মহারানী তৃষার আদেষে মত নিজেই পৃথিবীতে আসে। দূর্ভাগ্য বসত সে আসে ধানমন্ডির রবিন্দ্র সরবরে। এখানে প্রায় মিনিট ২০ হাটাহাটি করেও পছন্দমত কোন রোমান্টিক পুরুষ খুজে পায় না। আনমনে হটাৎ বাতাসে উড়ে অন্য কোথাও যাওয়া শুরু করি পড়ি। এরপর হটাত খেয়াল করে লেকের উপর একটা ডিঙ্গি দুলছে। হয়তো ডুবে যাচ্ছে ভেবে নিচে নেমে কাছে আসে। নিচে নেমে তো অবাক, একটা ছেলে আর একটা মেয়ে ডিঙ্গিতে। ছিঃ ছিঃ ছিঃ ছিঃ ছিঃ। এভাবে মেয়েটাকে চুমু খাচ্ছে। মনে হচ্ছে মেয়েটার ঠোট দুটো আজ ছিঁড়ে ফেলবে এই বদ ছেলেটা। যাই ওকে একটু স্বায়েস্তা করে আসি।
স্বায়েস্তা করার জন্য ডিঙ্গি উল্টিয়ে দেবার সিদ্ধান্ত নেয় পড়ি। যেই উল্টিয়ে দিতে যাবে তখন মনে পরলো আরে এই তো রোমান্টিক পুরুষ। দেখতে যেমন কিউট ঠিক তেমনে বেশ রোমান্টিক সেটাতো বোঝাই গেলো। পড়ি সাথে সাথে ডিঙ্গি উল্টিয়ে দিয়ে ছেলেটিকে তুলে নিয়ে আসে। তুলে নিয়ে হাজির হয় মহারানী তৃষার কাছে।
অন্যদিকে প্রথম কয়েকদিন মহারাজ রনির রাজ্যের সব ঠিকঠাক থাকলেও কিছুদিন পরেই শুরু হয় ঝামেলা। স্বামী স্ত্রীর মধ্যকার মিল হয় না কোনভাবেই। একজন আরেকজনকে জেনো সহ্য করতেই পারছে না। তাই প্রতিদিন এখন এই ভূত দম্পতীগুলোর মধ্যে কলহ বেড়েই চলছে। তাই সবাই মিলে আবার মহারাজ রনির রাজদরবারের সামনে এসে মিছিল। মুক্তি চাই, দিতে হবে। রনি আবার ভূতজ্ঞ্যানি তাহমিদকে খবর দিয়ে আনলো। তাহমিদ নিজেও বুঝছিলো না এখন কি করতে হবে।
রনিঃ কি করবো দাদা? ব্যাপক মুশকিলে পরে গেলাম।
তাহমিদঃ আমিও বুঝতেছিনা কি করবো?
রনিঃ কি করবো? এক কাজ করি?
তাহমিদঃ কি?
রনিঃ অর্নবকে দিয়ে পৃথিবী থেকে দুইজন মানুষ ধরে আনি। এরা এদের শিক্ষা দিবে যে কিভাবে সংসার করতে হয়?
তাহমিদঃ আচ্ছা কর।
রনি তারবন্ধু ভবঘুরে অর্নব ভূতকে ডেকে পাঠায়। তারপর অর্নবকে সব বুঝিয়ে দেয় যে কিভাবে একজোড়া ধরে নিয়ে আসতে হবে। অর্নব রনির কথামত পৃথিবীতে আসে। এসে শুনতে পায় যে তার বন্ধু হৃদয় মারা গিয়েছে। মশার কামড়ে মারা গিয়েছে। এটাও কি সম্ভব? কিভাবে কি হইলো জানতে এবং হৃদয়ের আত্তাকে তার সাথে নিয়ে যাওয়ার জন্য হৃদয়ের বাড়িতে গেলো। অনেক খোজাখুজি করে হৃদয়ের আত্তাকে বের করলো? কাঁদছিলো বেচারা।
অর্নবঃ কিরে ব্যাটা কাঁদছিস কেন?
হৃদয় ভূভূভূভূত্তত্তত্তত্তত্তত বলে চিৎকার দিয়ে জ্ঞ্যান হারিয়ে পরে গেলো। অর্নব হৃদয়ের দুই গালে ঠাস করে দুই চটকনা মেরে জ্ঞ্যান ফিরিয়ে আনলো।
হৃদয়ঃ তুই না মরে গেছিস? তুই আবার আসলি কিভাবে?
অর্নবঃ ন্যাঁকা। আমি মরে গেছি আর তুই বুঝি বেঁচে আছিস?
হৃদয়ঃ আমি কি মরে গেছি?
অর্নবঃ হ্যা। মরে গেছেন। তাও আবার মশার কামড়ে। আচ্ছা মশার কামড়ে মানুষ মরে কিভাবে?
হৃদয়ঃ আরে বলিস না। পরতেছিলাম। হটাৎ দেখি দুটো মশা কিছুক্ষণ একসাথে থেকে দুইদিকে হাটা ধরলো। আমি ভাবলাম হয়তো ঝগড়া করে ব্রেকাপ করেছে। তাই একসাথে আবার এনে বই এর উপর রাখলাম। আবার দুইদিকে ছুটছে। আবার একসাথে করলাম। এইভাবে কয়েকবার করার পর একসময় আমার হাতে চাপা পরে মারা গেলো একটি মশা। আরেকটি উড়ে চলে গেলো। এর কিছুক্ষন পর একঝাক মশা উড়ে এলো। এবং সেখান থেকে একটি মশা আমার কানের কাছে এসে বললো আমি নাকি কিউপিড একজনকে মেরে ফেললাম।
অর্নবঃ এটা আবার কি দেবতা?
হৃদয়ঃ কিউপিড মশার আকৃতি নিয়ে থাকতো। তারা স্বামী স্ত্রী। এরাই প্রতি ভ্যালেন্টাইন ডে তে উড়ে উড়ে দেখে পছন্দ অনুযায়ী জুটিকে পার্থনা করে কামড়ে দিতো আর সেই জুটির মধ্যে ভালোবাসা স্মৃষ্টি হয়ে যেত। কিন্তু এখন আমি তো একজন কে মেরে ফেলেছি। তাই সে অন্য সব মশা এনে আমাকে কামড়ে দেয়। লক্ষাধিক মশার আক্রমন মনে হয় আমি সইতে পারিনি। তাই অক্কা পেয়েছি।
অর্নবঃ যাক ভালো হইছে। এখন থেকে তুই আমার সাথে আমাদের ভূত রাজ্য #কলংকপূরে থাকবি। ফাইনাল।
হৃদয়ঃ চল। তবে যাবার আগে শেষবার আমার লাশটাকে দেখে যাই।
হৃদয় আর অর্নব যায় লাশের কাছে। কত্ত মানুষ হৃদয়ের জন্য কান্নাকাটি করছে। এসব দেখে হৃদয় আবার কান্না শুরু করে। অনেক মানুষের ভিড়ে অর্নবের চোখ পড়ে একটি জুটির উপর। একটি মেয়ে কাঁদছে আর তার জামাই রুমাল দিয়ে চোখ মুছে দিচ্ছে। আহ কি ভালোবাসা।
অর্নবঃ এই হৃদয় এদের চিনিস? এদের আমার সাথে নিয়ে যাবো। আমাদের রাজ্যে একটা সমস্যা হচ্ছে। এরাই পারবে সমাধান দিতে।
হৃদয়ঃ এটা ঝুম, আমার বান্ধুবী। আর ওর জামাই মামুন ভাই।
অর্নবঃ হবে। চল।
অর্নব ঝুম আর মামুনকে সিস্টেমে তার সাথে নিয়ে যায়। ফিরে মহারাজ রনির কাছে।
ঐদিকে পড়ি যে ছেলেকে ধরে নিয়ে আসে তার নাম জয়। জয়কে মহারানী তৃষা সব কিছু খুলে বলে। এরপর জয়কে বলে এর সমাধান দিতে।
জয়ঃ এর সমাধান এদের মধ্যে ভালোবাসা তৈরি করতে হবে। এরা ভূত জিবনে এসে হয়তো ভালোবাসা দেখেনি ভুতদের মধ্যে, হয়তো তাই তারা বুঝছে না কিভাবে ভালোবাসতে হবে।
রানী পড়িঃ বাহ! কি সুন্দর উক্তি।
মহারানী তৃষাঃ তাহলে এখন কি করতে হবে সেটা বলুন?
জয়ঃ আপনাদের ভূত জগতের এমন কোন পুরুষ আর মহিলার ভালোবাসা তৈরি করতে হবে যাদের ভালোবাসা দেখে এরা শিখবে। এমন জুড়ি হতে হবে যাদেরকে বাকি সবাই ফলো করে।
এরমধ্যে সেখানে এসে হাজির হয় রানী অধরা।
রানী অধরাঃ মহারানী তৃষা একটা ঝামেলা হয়ে গেছে। অনুপ আর আদিত্য এক হয়ে পিশাচরানী নওমীর সাথে হাত মিলিয়েছে। ওরা এখন আপনার এবং মহারাজ রনির রাজ্য আক্রমন করবে।
মহারানী তৃষাঃ এখন উপায়? কবে করবে?
রানী অধরাঃ আগামীকাল ভ্যালেন্টাইন ডে। সেদিনই করবে।
মহারানী তৃষাঃ কত ইচ্ছে ছিলো এইবার ভ্যালেন্টাইন ডে ঐ ভালোবাসা দিবসে ভূতর‍্যাজ্যে থাকবে আনন্দ। ফুর্তি আর খুশির জোয়ার, সবাই একে অপরকে ভালোবাসবে। আর এখন কিনা যুদ্ধ করতে হবে?
রানী পড়িঃ এখন কি করা যায়? যেহেতু মহারাজ রনির রাজ্যেও আক্রমন করবে তাহলে আমাদের উচিৎ তার সাথে হাত মেলানো। তাহলে আমাদের শক্তি বৃদ্ধি হবে। আমরা সহজেই জয়লাভ করতে পারবো।
মহারানী তৃষাঃ অসম্ভব। ঐ খাটাশের সাথে এক হয়? কখনো না। আমি একাই যুদ্ধ করবো।
অলরেডি মহারাজ রনির কাছেও যুদ্ধের বার্তা চলে এসেছে। সেই খুব টেনশনে আছে এটি নিয়ে। আবার বুদ্ধি চায় তার প্রিয় বড়ভাই তাহমিদ এর কাছে। তাহমিদ তৃষার সাথে এক হয়ে কাজ করতে বলে। কিন্তু এখানেও রনি তৃষার মত আপত্তি জানায় এক হয়ে কাজ করার জন্য। সে নিজে একাই যুদ্ধ করবে বলে ঘোষনা দেয়।
পরের দিন, ১৪ ফেব্রুয়ারী। দুপুর ১২ টার দিকে সবাই হাজির হয় পলাশির কুরুক্ষেত্রে। এখানেই যুদ্ধ হবে। পাশাপাশি অবস্থান করছে রনি আর তৃষা ভূতসৈন্যদল নিয়ে। আর তাদের ঠিক ঐপাড়ে অবস্থান করছে নওমী, আদিত্য, অনুপের দল।
হৃদয় ভূত জগতে একেবারেই নতুন। তারমধ্যে মশার কামড়ের ব্যাথা এখনো কমেনি। যুদ্ধ দেখে খুব ভয় পাচ্ছে। তারপাশের ঝুম, মামুন আর অর্নব। হটাৎ হৃদয় চিৎকার দিয়ে উঠে।
হৃদয়ঃ মশা মশা মশা।
ঝুমঃ মশা মশা করে চিৎকার করছিস কেন? মশা দেখে এতো ভয়?
হৃদয়ঃ এই মশাই আমাকে খুন করেছে আর তুই বলছিস মশা দেখে এতো ভয় পাওয়ার কি আছে। মর হারামী।
ঝুমঃ মরেছিই তো। তোর জন্য কাঁদতে কাঁদতে আমি স্ট্রোক করে মরে গেলাম। আমার মৃত্যু দেখে আমার বউ পাগল জামাই মামুনও স্ট্রোক করে মরে গেলো। এখন তুই আবার বলছিস মরতে?
হৃদয় পেছন দিকে দৌঁড় দেয়। মশাটিও ওর পেছনে আসতে থাকে। কাছে এসে কানে পাশে গিয়ে মশা বলে
মশাঃ আমি কি কিউপিড। ভয় পেও না। যদিও আমি আমার মৃত্যুর প্রতিশোধ নিতে এসেছিলাম। কিন্তু তোমার কথা শুনে আমার ভূল ভেঙেছে। তুমি ইচ্ছে করে আমাকে মারোনি। আচ্ছা এখন কাজের কথাই আসি। এই যুদ্ধ থামাতে হলে এখন ভালোবাসার প্রয়োজন। মহারাজ রনি এবং মহারানী তৃষার মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টি হলেই এই যুদ্ধ শান্তিতে পরিনত হবে।
হৃদয়ঃ কিন্তু এই দুজন তো একজন আরেকজনকে দেখতেই পারে না, আবার ভালোবাসা ?
কিউপিডঃ সেটার ব্যাবস্থা আমি করছি।
কিউপিড উড়ে গিয়ে মহারাজ রনির ঠোটে চুমু খায়, এরপর সেখান থেকে আবার উড়ে গিয়ে মহারানী তৃষার ঠোটে চুমু খায়। মহারাজ রনি এবং মহারানী তৃষা কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে। এরপর বাংলা সিনেমার মত দুজন দুজনের দিকে দৌঁড় আসে। কাছাকাছি এসে আবার থেমে যায়। মহারানী তৃষা একটা মিষ্টি হাসি দিয়ে মহারাজ রনির বুকে ঝাপিয়ে পরে। মহারাজ রনি শক্তকরে চেপে ধরে মহারানী তৃষাকে। কপালে চুমু খায়।
এই সুন্দর দৃশ্য দেখে ভূত রাজ্যের বাকিরা মোহিত হয়। তাদের মনের ভিতর সুপ্ত ভালোভাসা আবার জেগে উঠে। বুঝতে পারে ভালোবাসা কি। সবাই অস্ত্র ফেলে দেয়। রাজা অনুপ, অদিত্য, নাজমুল ভুল বুঝতে পারে। যুদ্ধ থেকে সরে আসে। কিন্তু নওমী যুদ্ধ চালিয়ে যেতে চায়। এরপর সবাই একহয়ে পিশাচিনি নওমী আর তার দলকে তাড়া দেয়। ভয় পেয়ে পালিয়ে যায়।
তাহমিদ আর পড়ি এসে মহারাজ রনি এবং মহারানী তৃষার বিয়ের ব্যাবস্থা করে। দুই রাজ্য সহ সকল রাজ্য এক হয়ে যায়।
সবাই মিলে খুব দ্রুত পুরো রাজ্য বর্নীল সাঁজে সাজায়। আজ মহারাজ এবং মহারানীর বিয়ে, সাথে ভালোবাসা দিবস। বিশাল আয়োজন। রাত ৮টায় বিশাল আয়োজন করা হয়। সেখানে বিয়ে হয়, হৈ হুল্লোড় হয়, ফুর্তি হয়। ভালোবাসা ভূত ভুতুরা পছন্দের ভুত ভূতুদের প্রেম নিবেদন করে। দুজন দুজনকে ভালোবাসতে পারবে মনে করলে তাড়া প্রেমের শপথে আবদ্ধ হয়। এভাবেই শুরু হয় ভূত নগর কলংকপুরে ভালোবাসা দিবসের উৎসব। সেই থেকে চলে আসছে, আজ অবধি চলছে।

অন্য খবর  নবাবগঞ্জের ঐতিহাসিক ‘ব্রজ নিকেতন’

লেখকঃ এ আর শিপন

Comments

comments