ফেসবুকে নিষিদ্ধ মিয়ানমার সেনাপ্রধান

67

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক মানবাধিকার লঙ্ঘনের দায়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং-এর ফেসবুক পেইজ বন্ধ করে দিয়েছে। একইসঙ্গে দেশটির সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমপর্কিত সব ধরনের ফেসবুক পেইজও বন্ধ করে দিয়েছে সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে বড় এই মাধ্যম। জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন কর্তৃক প্রকাশিত প্রতিবেদনে তার বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে গণহত্যা পরিচালনার অভিযোগ  আনার পর এ ঘোষণা দিলো ফেসবুক। এই মিডিয়া জায়ান্ট তার ওয়েবসাইটে দেয়া এক বিবৃতিতে বলেছে, আমরা মিয়ানমারের ২০ ব্যক্তি ও সংগঠনকে ফেসবুক থেকে নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছি। তার মধ্যে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং রয়েছে। একইসঙ্গে ফেসবুক বলেছে, তারা এধরনের মানুষদের জাতিগত নিধনযজ্ঞ পরিচালনায় তাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যবহার করতে দেবে না।

২০১৭ সালের ২৫শে আগস্ট রাখাইনে সেনাবাহিনীর নিরাপত্তা চৌকিতে সশস্ত্র সংগঠন আরসার হামলাকে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাবিরোধী অভিযানের পেছনে কারণ বলে দাবি করে এসেছে। তবে আন্তর্জাতিক কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন ও সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে সেখানকার প্রকৃত অবস্থা সমপর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়। রাখাইন থেকে রোহিঙ্গাদের তাড়িয়ে দিয়ে তাদের জায়গা দখল ও বিদেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্র তৈরিই ছিল এ অভিযান পরিচালনার আসল উদ্দেশ্য। সোমবার জাতিসংঘ পরিচালিত আন্তর্জাতিক ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন জেনেভাতে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা নিয়ে একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে দেশটির সেনাপ্রধানসহ সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সুসপষ্ট অভিযোগ তুলে ধরা হয়। সেখানে মিন অং হ্লাইংয়ের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীকে নির্দেশ দিয়ে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন পরিচালনার অভিযোগ আনা হয়। এর পরেই ফেসবুক থেকে তাকে নিষিদ্ধের এ ঘোষণা দেয়া হলো।

অন্য খবর  বন্ধ সিটিসেল টাওয়ারগুলোর কী হবে?

Comments

comments