পশ্চিমবঙ্গে দাঙ্গা জামায়াতকে দায়ি করলেন মমতা

232
পশ্চিমবঙ্গে সাম্প্রদায়িক অশান্তি সৃষ্টি করতে পারে বিজেপি: মমতা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি অভিযোগ করেছেন, বাংলাদেশের সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে জঙ্গিরা বশিরহাটে প্রবেশ করে সেখানে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা করেছে। গতকাল বিধানসভায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দেওয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে এই অভিযোগ করেন তিনি।

মমতা বলেন, ‘সাতক্ষীরা (বাংলাদেশ) দিয়ে কারা জামায়াতকে প্রবেশ করতে দিচ্ছে? কারা তাদের জন্য সীমান্ত খুলে দিচ্ছে? তারা (জামায়াতে ইসলাম) হাসিনার (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) বিরোধী এবং তারা পশ্চিমবঙ্গে দাঙ্গা সৃষ্টি করতে চেয়েছিল। কিন্তু এই রাজ্যের ভালো মানুষরা এই অপচেষ্টা রুখে দিয়েছিল। সাতক্ষীরা দিয়ে এসে সামাজিক মাধ্যমে ভুয়া ভিডিও ছড়িয়ে তারা (জামায়াতে ইসলাম) দাঙ্গা ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিল।’

উল্লেখ্য, মাসের শুরুর দিকে বসিরহাট থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে বাদুরিয়ায় এক কিশোরের ফেসবুক পোস্ট নিয়ে স্থানীয় মুসলিমরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠলে দাঙ্গার সুত্রপাত। এই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা উত্তর চব্বিশ পরগনার অন্যান্য এলাকায়ও ছড়িয়ে পড়ে।

প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ, নেপাল এবং চীনের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির জন্য ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারের পররাষ্ট্রনীতির ব্যর্থতাকে দায়ী করেন মমতা। এর জন্য তার রাজ্যকে ভুগতে হচ্ছে বলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। মমতার দাবি, গত কয়েক বছরে ভুটান ও নেপালে চিনের সক্রিয়তা অনেক বেড়েছে। যার ছায়া পড়ছে দার্জিলিংয়ে।

অন্য খবর  ইরানের কারনে গতিপথ বদলাল মার্কিন রণতরী

গত কয়েকদিন ধরেই মমতা অভিযোগ করে আসছিলেন, বাদুড়িয়া-বসিরহাটের দাঙ্গায় বাইরের লোকর হাত রয়েছে। তবে গতকাল রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ভোট দিয়ে বেরিয়ে আসার পর সাংবাদিকদের সরাসরিই বলেন, ওই দাঙ্গায় বাংলাদেশের জামায়াতের হাত রয়েছে। তার সরকারের কাছে এই অভিযোগের সমর্থনে তথ্যপ্রমাণও রয়েছে বলে দাবি মমতার।

মমতা বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন, বিজেপি রাজ্যে অশান্তি তৈরির চেষ্টা করছে। সেই চেষ্টায় তারা সফল হবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ক্ষমতাসীন বিজেপির বিরুদ্ধে সব শক্তিকে একজোট হওয়ার ডাক দিয়ে মমতা বলেন, লোকসভায় আসন সংখ্যার জোরে মানুষকে হেয় করছে শাসক দল। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর গাফিলতিতেই বাংলাদেশের সাতক্ষীরা দিয়ে এ রাজ্যে জঙ্গিদের অনুপ্রবেশ ঘটছে। চীনের জন্যও রাজ্যের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে।

Comments

comments