নোলানের বক্তব্যে দেড় ঘণ্টার মুগ্ধতা

21
ক্রিস্টেফার নোলান
বিজ্ঞাপন

পালে দো ফেস্টিভ্যাল ভবনের চতুর্থ তলায় সাল বুনুয়েল থিয়েটার। শনিবার (১২ মে) বিকাল ৪টায় এখানে কানের মাস্টারক্লাসের অংশ হিসেবে আড্ডা দিলেন ব্রিটিশ নির্মাতা ক্রিস্টোফার নোলান। তার কোনও ছবির প্রদর্শনী নেই, তার ছবিতে হলিউডের যেসব তারকারা কাজ করেছেন, তাদের কেউই আসবেন না এ অনুষ্ঠানে। অথচ বিশাল লম্বা লাইন। ভাগ্যিস, এক ঘণ্টা আগে এসে দাঁড়িয়েছিলাম!

ক্যামেরার পেছনের কোনও মানুষকে নিয়ে এমন উন্মাদনা চোখে পড়ার মতো। স্টিভেন স্পিলবার্গের পর সম্ভবত ক্রিস্টোফার নোলানই হলিউডের নির্মাতাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভক্ত তৈরি করতে পেরেছেন। যারা নোলান বলতেই পাগল! তিনি শুধু নিজের ছবির চিন্তাভাবনা নিয়ে কথা বললেন, অথচ দেড় ঘণ্টা বিমুগ্ধের মতো শুনলেন সবাই। পুরো মিলনায়তনে সবাই যেন তখন ছাত্রছাত্রী।

চলচ্চিত্র পরিচালনায় ২০১৮ সালে কুড়ি বছর পূর্ণ করেছেন ক্রিস্টোফার নোলান। ১৯৯৮ সালে ‘ফলোয়িং’ দিয়ে শুরু। তবে ‘মেমেন্টো’ (২০০০) আর ‘ইনসেপশন’ (২০১০) তার দুটি সেরা কাজ মনে করেন বোদ্ধারা।

ডিসি কমিকসের সুপার হিরো ব্যাটম্যানকে নিয়ে ট্রিলজি ‘ব্যাটম্যান বিগিন্স’ (২০০৫), ‘দ্য ডার্ক নাইট’ (২০০৮) ও ‘দ্য ডার্ক নাইট রাইজেস’ (২০১২) নোলানের জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দিয়েছে। গত বছর ‘ডানকার্ক’ বানিয়ে নিজেকে আরও উঁচুতে নিয়ে গেছেন তিনি।

অন্য খবর  ঋত্বিকের নাম ব্যবহার করে প্রতারণা!

ব্যাটম্যান ট্রিলজি প্রসঙ্গে নোলান বলেন, ‘আমার কাছে প্রতিটি ছবি ভিন্ন ঘরানার। তবে ১৩ বছর আগে ওয়ার্নার ব্রাদার্স আমাকে ব্যাটম্যান নিয়ে ছবি বানানোর কাজ দিলেও তখন ট্রিলজি কিংবা সিক্যুয়েলের পরিকল্পনা ছিল না আমাদের।’

এবারই প্রথম কান চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিচ্ছেন নোলান। স্ট্যানলি কুবরিকের ‘২০০১: অ্যা স্পেস অডিসি’র ৭০ মিলিমিটার প্রিন্টের প্রিমিয়ার উপস্থাপন করেন তিনি। শনিবারের আড্ডায় মঞ্চে এই ছবির একটি পোস্টারও রাখা হয়।

নোলানের দেওয়া অটোগ্রাফআড্ডা শেষ হতেই সাল বুনুয়েলে উঠেপড়ে লাগেন অটোগ্রাফ ও সেলফি শিকারিরা। কিন্তু আয়োজকদের কড়া নিরাপত্তার কারণে কেউ তাতে সফল হননি। অবশ্য কপাল ভালো আমার। পালে দো ফেস্টিভ্যাল থেকে নিচে নেমে যাওয়ার পর হঠাৎ দেখি, ক্রিস্টোফার নোলান ও হেঁটে বাইরের দিকে যাচ্ছেন। সেখানে তার দিকে ছবি আর কাগজ-কলম এগিয়ে দিলাম।

ক্রিস্টোফার নোলান আসবেন, আগেভাগেই তা জানতাম। তাই ইন্টারনেট থেকে তার একটি ছবি প্রেস রুমে বসে ডাউনলোড করে কালার প্রিন্ট দিয়ে রেখেছি। সাল বুনুয়েলে সেটা কাজে লাগেনি। তবে পালে দো ফেস্টিভ্যাল ভবনে নিচে নামার পর ৪৭ বছর বয়সী এই নির্মাতা নিজের ছবির ওপর অটোগ্রাফ দিয়ে গেলেন।

অন্য খবর  চলচ্চিত্রকে বিদায় অপুরঃ আগামী বছর যাবেন হজ্জ্বে

Comments

comments