নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পেতে অর্থনৈতিক অঞ্চলে শিল্পস্থাপনের পরামর্শ নসরুল হামিদ বিপুর

126
নসরুল হামিদ

নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পেতে যত্রতত্র শিল্প-কারখানা স্থাপনের পরিবর্তে অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে শিল্পস্থাপনের জন্য অগ্রাধিকার দেওয়ার পরমর্শ দেন বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। গতিশীল প্রবৃদ্ধি অর্জনে বিদ্যুতের সর্বোত্তম ব্যবহার নিয়ে রোববার ঢাকার ওয়েস্টিন হোটেলে এফবিসিসিআই আয়োজিত অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেন, “কোথাও সুলভ মূল্যে জমি পেলে সেখানে শিল্প স্থাপন করে ফেলা এবং পরে গ্যাস-বিদ্যুতের চাহিদা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু সব স্থানে একই হারে একই সুবিধাসহ গ্যাস-বিদ্যুৎ দেওয়া যায় না। তবে নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে গ্যাস-বিদ্যুৎসহ যাবতীয় ইউটিলিটি সুবিধা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে সরকার। পরিকল্পিত কারখানা করলে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুৎ পাবেন। অন্যথায় নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুৎ সম্ভব নাও হতে পারে।”

বিদ্যুতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে সরকারের বহুমুখী পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কল-কারখানায় দীর্ঘদিন ধরে গ্যাসের যে সঙ্কট ছিল তা অনেকখানি কেটে গেছে। নিজস্ব ২৭০০ এমএমসিএফডি গ্যাসের সঙ্গে এখন আমদানি করা এলএনজি যুক্ত হয়েছে প্রায় ৫০০ এমএমসিএফডি। বিদ্যুতের উৎপদান ব্যয় ভোক্তাদের নাগালে রাখতে জ্বালানি বৈচিত্র্যের দিকে জোর দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হচ্ছে। ক্রসবর্ডার বিদ্যুৎ সঞ্চালনকেও একটি বিকল্প ব্যবস্থা হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

অন্য খবর  দোহারে হেরোইন ও ইয়াবাসহ ২ জন আটক

বিদ্যুৎ খাতে প্রতিনিয়ত নতুন নুতন প্রযুক্তি যুক্ত হচ্ছে উল্লেখ প্রতিমন্ত্রী বলেন, “আগামী ৫০ বছর ধরে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের পরিকল্পনা মাথায় নিয়ে সরকার কাজ করছে। গভীর সমুদ্রে এলএনজি টার্মিনাল, ঢাকা-চট্টগ্রাম পাইপলাইনের মাধ্যমে জ্বালানি পরিবহন, ভারত থেকে পাইপলাইনের মাধ্যমে উত্তরাঞ্চলের জন্য তেল আমদানি, ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ভূ-গর্ভস্ত সঞ্চালন লাইন নির্মাণ এসব প্রকল্প অগ্রাধিকারে রয়েছে।”

Comments

comments