নবাবগঞ্জের শোল্লা গ্রামে স্কুলছাত্রীর রহস্যজনক আত্মহত্যা

260

প্রতিদিনের মতো সকাল থেকে বাড়ি থেকে প্রাইভেট পড়তে বের হয়েছিল শোল্লা মাধ্যমিক উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী শিখা আক্তার(১৪)। কিন্তু প্রাইভেট শেষ করে বাসায় এসে কোন এক অজানা কারনে বারান্দার কেবিনে আড়ার সাথে দড়ি দিয়ে ফাঁশি নিয়ে আত্মহত্যা করেছে শিখা আক্তার। শিখা শোল্লা গ্রামের মো. আবজাল হোসেনের মেয়ে।

শীলা আক্তার শোল্লা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর অগ্রনী শাখার একজন মেধাবী ছাত্রী। সে বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম স্থান অধিকারীণী। প্রতিদিনের মত সে সকাল ৭ টায় প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল। সেখান থেকে বাড়ি ফিরে পরিবারের অগোচরে কেবিনের আড়ার সাথে গলার ওড়না দিয়ে আত্মহত্যা করে। প্রথম চেষ্টায় ব্যার্থ হয়ে দ্বিতীয় দফায় খাটের উপর চেয়ার দিয়ে ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে আত্মহত্যা করে। শীলার ছোট ভাই মোঃ আরাফাত ঘরের জানালা দিয়ে ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার দিলে পরিবারের সদস্য সহ আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে আসে।

নবাবগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ আল আমীন জানান, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছি। পরিবারের পক্ষ থেকে কোন ধরনের অভিযোগ না থাকায় লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আত্মহত্যার কোন কারনও জানাতে পারেনি শিখার পরিবারের সদস্যরা।

অন্য খবর  নবাবগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনায় হামলায় আহত

Comments

comments