দোহারে সবাইকে নিয়ে জঙ্গিবাদকে প্রতিরোধঃ মাথাচাড়া দিতে দেয়া হবে না

    492

    দেশের মাটিতে ধর্মের নামে মানুষ হত্যাকারী জঙ্গিগোষ্ঠীকে কখনোই মাথাচাড়া দিয়ে দাঁড়াতে দেয়া যাবে না। এদের প্রতিহত করতে দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকার দোহার থানা পুলিশ আয়োজিত জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবিরোধী সুধী সমাবেশে এসব কথা বলেন বক্তারা। ঢাকা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে থানা চত্বরে এ সমাবেশে  অনুষ্ঠিত হয়।

    বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে দেশ থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল হবেই। দেশের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে দেশী-বিদেশী চক্র ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তাদের এ ষড়যন্ত্র কোনো দিনই সফল হবে না। তিনি সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক নেতাসহ নানা শ্রেণীপেশার মানুষকে সচেতন হয়ে এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান।

    জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জাতীয় মহিলা পার্টির সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি আরও বলেন, দেশ যখন উন্নয়নের দিকে যাচ্ছে ঠিক সেই মুহূর্তে বাধা সৃষ্টি করতে একটি মহল ধর্মের দোহাই দিয়ে বিভিন্ন স্থানে হত্যা ও নাশকতায় মেতে উঠেছে। দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে দিশেহারা হলে চলবে না। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব শক্তিকে দৃঢ় মনোবল ও সাহস নিয়ে ’৭১-র মতো প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই কুচক্রী মহলের অপতৎপরতা থেমে যাবে। ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান বলেন, জঙ্গিবাদ রোধে পুলিশের পাশাপাশি সমাজের দায়িত্বশীল ও সচেতন মহলকে এগিয়ে আসতে হবে। তরুণদের নিয়ে নতুন করে চিন্তা করতে হবে। তারা যেন পরিবার বা সমাজের চোখ ফাঁকি দিয়ে কখনও সন্ত্রাসবাদের দিকে না ঝুঁকে।

    অন্য খবর  দোহারে প্রেম নিয়ে দ্বন্দ্বে ভয়াবহ সংঘর্ষ: প্রতিবেশীর মৃত্যু

    এ সময় উপস্থিত ছিলেন আইজিআর (ইন্সপেক্টর জেনারেল অব রেজিস্ট্রার) খান আবদুল মান্নান, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নির্মল রঞ্জন গুহ, দোহার পৌর মেয়র আবদুর রহিম মিয়া, উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা কেএম আল আমিন, এএসপি মিনহাজুল ইসলাম, ওসি শেখ সিরাজুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক সুরুজ আলম, ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদ পারভেজ, দোহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আলি আহসান খোকন শিকদার, আনার কলি পুতুল, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রজ্জব আলী মোল্লা, ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন মোল্লা, সাবেক এএসপি মজিবুর রহমান, তোফাজ্জল হোসেন, অধ্যক্ষ তপন নন্দী, রহিম কমিশনার, জাতীয় পার্টি নেতা খন্দকার নুরুল আনোয়ার বেলাল, জুয়েল আহমেদ, ডা. আলাউদ্দিন আল আজাদ, আবদুল আলীম, মশিউর রহমান, বশির আহমেদ, লোকমান হোসেন, হায়দার বেপারি, হাজী মনির হোসেন, যুবলীগ নেতা আলমাছ উদ্দিন, আবদুর রহমান আকন্দ, নারী নেত্রী আসমা আক্তার রুমি, শিল্পী ইসলাম, ছাত্র সমাজ নেতা রাজিব খান, জুবায়ের হোসেন, নজরুল ইসলাম, মনির হোসেন প্রমুখ।

    Comments

    comments