দোহারে তানশীর মাদ্রাসার উদ্যোগে আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

56
তানশীরুল ইসলাম মাদ্রাসা
বিজ্ঞাপন

দোহারে তানশীর মাদ্রাসার উদ্যোগে আলোচনা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার ৩ জুন তানসির মাদ্রাসার নিজস্ব ভবনে ইফতার মাহফিলটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তানশীর গ্রপ এর শামিম, তানশীর মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওঃ মহিবুল্লাহ আযাদ, ডাঃ জালাল উদ্দিন, তানশীর মাদ্রাসার শিক্ষকবৃন্দু ও তানশীর মাদ্রাসার ছাএবৃন্দু। এছাড়া এই সময় জয়পাড়ার শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন এই ইফতারি মাহফিলে।

ইফতার উপলক্ষে এক সংক্ষিপ্ত কোরআন ও হাদিস এর আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় এ  সভায় বক্তব রাখেন রমজানে তাৎপর্য ও উপকারিতা উপর মাওলানা মাসুদ আলম তিনি  কোরআন ও হাদিস দিয়ে বলেন ইসলামী শরীয়তে সওম হল আল্লাহর নির্দেশ পালনের উদ্দেশে নিয়তসহ সুবহে সাদিকের শুরু থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার ও স্ত্রী সহবাস থেকে বিরত থাকা।

২য় হিজরীর শাবান মাসে মদীনায় রোজা ফরজ সংক্রান্ত আয়াত নাজিল হয় “হে ঈমানদারগণ! তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হলো যেভাবে তা ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর। যাতে তোমরা সংযমী হও। (সূরা বাকারা, আয়াত-১৮৩)।

সূরা বাকারার ১৮৫ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ তায়ালা আরও বলেছেন, “তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি সেই মাসকে পায় সে যেন রোজা রাখে”।

পবিত্র রমজানের ফজিলত ও মর্যাদা সম্পর্কে হাদিসের কিতাবগুলোতে অনেক হাদিস বর্ণিত হয়েছে। এর ভেতর থেকে কিছু হাদিস হলো-

প্রিয় নবীজি (সা.) এর প্রিয় সাহাবী হযরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেছেন, রাসুল (সা.) এরশাদ করেছেন, যখন রমজান মাস আসে আসমানের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয় এবং দোজখের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়, আর শয়তানকে শৃঙ্খলিত করা হয়। (বুখারী ও মুসলিম)

অপর হাদিসে এসেছে, হযরত শাহ্  ইবনে সা’দ (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী কারীম (সা.) এরশাদ করেছেন, বেহেশতের ৮টি দরজা রয়েছে। এর মধ্যে ১টি দরজার নাম রাইয়ান। রোজাদার ব্যতিত আর কেউ ওই দরজা দিয়ে প্রবেশ করতে পারবে না। (বুখারী, মুসলিম)

অন্য খবর  শুরু হয়েছে স্নাতক ভর্তি কার্যক্রম

বিখ্যাত হাদিস বিশারদ সাহাবী হযরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেছেন, হুজুর (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে ও সওয়াবের নিয়তে রমজান মাসের রোজা রাখবে তার পূর্বের সব গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে ও সওয়াবের নিয়তে রমযান মাসের রাতে এবাদত করে তার পূর্বের সব গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে ও সওয়াবের নিয়তে কদরের রাতে ইবাদত করে কাটাবে তার পূর্বের সব গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। (বুখারী, মুসলিম)

হাদিসে আরো এসেছে, রাসুল (সা.) বলেন, আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেছেন, রোজা ছাড়া আদম সন্তানের প্রত্যেকটি কাজই তার নিজের জন্য। তবে রোজা আমার জন্য। আমি নিজেই এর পুরস্কার দেব। রোজা (জাহান্নামের আজাব থেকে বাঁচার জন্য) ঢাল স্বরুপ।

তোমাদের কেউ রোজা রেখে অশ্লীল কথাবার্তায় ও ঝগড়া বিবাদে যেন লিপ্ত না হয়। কেউ তার সঙ্গে গালমন্দ বা ঝগড়া বিবাদ করলে শুধু বলবে, আমি রোজাদার।

সেই মহান সত্তার কসম যার করতলগত মুহাম্মদের জীবন, আল্লাহর কাছে রোজাদারের মুখের গন্ধ কস্তুরীর সুঘ্রানের চেয়েও উওম।

রোজাদারের খুশির বিষয় ২টি- যখন সে ইফতার করে তখন একবার খুশির কারণ হয়। আর একবার যখন সে তার রবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে রোজার বিনিময় লাভ করবে তখন খুশির কারণ হবে। (বুখারী)

অপর একটি হাদিস হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেছেন, রাসুলে পাক (সা.) বলেছেন, রোজা এবং কোরআন (কেয়ামতের দিন) আল্লাহর কাছে বান্দার জন্য সুপারিশ করবে। রোজা বলবে, হে পরওয়ারদিগার! আমি তাকে (রমজানের) দিনে পানাহার ও প্রবৃত্তি থেকে বাধা দিয়েছি। সুতরাং তার ব্যাপারে আমার সুপারিশ কবুল করুন। কোরআন বলবে, আমি তাকে রাতের বেলায় নিদ্রা হতে বাধা দিয়েছি। অন্য বক্তা ডাঃ জালাল উদ্দিন বলেন ডাঃ উপকারিতায় রোজার গুরুত্ব হল রোজা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং কোষের পুনর্গঠনের পরিমাণ বৃদ্ধি করে। এছাড়া রোজা রাখলে শরীরের ক্ষতিকারক টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থ নিঃসরণের পরিমাণও বৃদ্ধি পায়।

অন্য খবর  বেগম আয়েশা গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ও সচেতনতা তৈরীতে সে্মিনার

রোজা রাখলে শরীরের ক্ষতিকারক ট্রাইগ্লিসারাইড এবং খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে আসে। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে। রোজা রাখলে স্ট্রেস হরমোনের নিঃসরণের পরিমাণ কমে এবং মেটাবলিক রেট হ্রাস পায়। ফলে রোজা রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে এবং হৃৎপিণ্ডের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। রোজার কারনে রক্তের সুগারের মাত্রা কমে। এটা ইনসুলিনের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে ডায়াবেটিস রোগীদের রোজা রাখার ব্যাপারে সতর্ক থাকা উচিত। সম্ভব হলে রোজার আগেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া উচিত। বিশেষ করে, যেসব ডায়াবেটিস রোগী ইনসুলিন গ্রহণ করেন তাদের ক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে রোজা রাখতে হবে। রোজা রাখলে শরীরে ইনফ্লামেশন বা প্রদাহ সৃষ্টির সম্ভাবনা হ্রাস পায়। এবং সর্বশেষ  তানশীর প্রধান শিক্ষক মাওঃ মহিবুল্লা আযাদ  বলেন আজ সেই বদরের দিন এই দিনেই মুসলমানরা রোজা রেখে ইসলামের বিজয় পতাকা ছিনিয়ে এনেছে। তাই এই দিনটা আমাদের সবারি সরন রাখা উচিত এর পর তিনি দোয়া ও মোনাজাত এর মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ করেন।  এরপর সবাই মিলে এক সাথে ইফতারি করেন।

Comments

comments