দোহারে জমে উঠেছে বৈশাখীর কেনাকাটা

499
দোহারে জমে উঠেছে বৈশাখীর কেনাকাটা

আর মাত্র ১ দিন বাকি! চারিদিকে চলছে বাঙালির উৎসব বৈশাখ উদযাপনের প্রস্তুতি। এ উপলক্ষে সরগরম হয়ে উঠেছে দোহারে জনপদ। দোহারের অভিজাত শপিংমল, বুটিক শপ থেকে শুরু করে ফুটপাতেও চলছে বৈশাখী কেনাকাটার ধুম।

তবে দেশী উৎসবকে বরণ করতে ক্রেতাদের প্রথম পছন্দ দেশি ব্র্যান্ড। ফতুয়া-পাঞ্জাবি, শাড়ি, সেলোয়ার-কামিজ, মাটির অলংকার, ফুল, শুভেচ্ছা কার্ড সব কিছুতেই দেশি পণ্যের প্রাধান্য। আবহাওয়ায় উত্তাপ থাকলেও জয়পাড়ায় ক্রেতাদের আনাগোনা লক্ষ্য করার মতো।

বৈশাখী পোশাক তো নয়, যেন রঙের খেলা। হরেক রংয়ের সংমিশ্রণে বিপণিবিতানগুলো দেখে মনে হচ্ছে, যেন রংয়ের হাট। নারীদের পছন্দ লাল-সাদা রংয়ের শাড়ি ও থ্রি পিস আর পুরুষের লাল-সাদা রংয়ের পাঞ্জাবি। আবার কারো কারো ফতুয়ার প্রতি আকর্ষণ বেশি। তবে এর বাইরেও বিভিন্ন রংয়ের শাড়ি ও থ্রিপিসও কিনতে দেখা গেছে ক্রেতাদের।

পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে ছেলেদের তেমন কিছু না হলেও চলে কিন্তু নারীর ক্ষেত্রে হাতের চুড়ি, কানের দুল কিংবা নাক ফুল সবই ম্যাচিং হওয়া চাই। তাই এক মার্কেট থেকে অন্য মার্কেটে তাদের ছোটাছুটি বেশি। বাঙালি নারীর সঙ্গে শাড়ির সম্পর্কটা যেন অকৃত্রিম আবেগের। বঙ্গরমণীর আদি আবরণ শাড়ি। তাই তো কোনো উৎসবে বিদেশি ফ্যাশন ভুলে সবাই হয়ে ওঠে বাঙালি আর শাড়ি তাদের সে আয়োজনকে করে তোলে আরও পরিপূর্ণ।

অন্য খবর  দোহারে ছাত্রদল ও যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল

এ ছাড়াও শিশু থেকে বৃদ্ধ সব বয়সের মানুষের জন্য পণ্যের পসরা সাজিয়েছে জয়পাড়ার বিভিন্ন শপিংমলগুলো। তবে দাম ক্রেতাদের হাতের নাগালে রাখার চেষ্টা করেছেন ব্যবসায়ীরা। দেশীয় শিল্পীদের নিপুণ হাতে কাজ করা পোশাক মিলছে এখানে। এমন পোশাকের প্রতি ক্রেতাদের আকর্ষণও বেশি।

নতুন কাপড়ে নতুন ডিজাইন আর বাহারি রঙে পোশাকের সমাহার রয়েছে শপিংমলগুলোতে। রয়েছে মানানসই ফ্যামিলি প্যাকও। এ বছর বৈশাখী শাড়িতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হয়েছে সুতি, তাঁত এবং কোটা শাড়ি। এ ছাড়াও আছে মসলিন, হ্যান্ডি, হাফসিল্ক ইত্যাদি। গরমে আরামদায়ক কাপড় হিসেবে সুতি ও তাঁতের শাড়ির চাহিদাই বেশি। এসব শাড়ির দামটাও থাকে হাতের নাগালে। শাড়ির নকশায় বৈচিত্র্য আনতে করা হয়েছে বস্নক, স্প্রে, ব্রাশপ্রিন্ট আর কারচুপির কাজ।

এ ছাড়া লেসের ব্যবহার চোখে পড়ার মতো। স্ক্রিনপ্রিন্ট, এমব্রয়ডারি এবং পাড়ের আঁচলে বৈচিত্র্যময় কাজ দেখা গেছে শাড়িতে। সাদা-লাল বা অফ-হোয়াইট, ক্রিমকবেস হিসেবে রেখে বিভিন্ন রং ব্যবহার করে উৎসব উপযোগী করা হয়েছে শাড়িগুলোকে।

দোহারের বেশ কিছু বিপনিবিতান ঘুরে দেখা গেছে, বৈশাখের সাজে নিজেকে সাজাতে কেনা-কাটায় ব্যস্ত বাঙালি ঐতিহ্যপ্রেমীরা।

Comments

comments