দেড় লাখেরও বেশি সদস্য কমাবে ভারতের সেনাবাহিনী

আগামী চার থেকে পাঁচ বছরের মধ্যে সেনাবাহিনীর দেড় লক্ষাধিক সদস্য কমিয়ে ফেলার পরিকল্পনা করছে ভারত। সেনাবাহিনীকে দক্ষ ও ভবিষ্যত যুদ্ধের উপযোগী করে গড়ে তুলতে ক্যাডার পর্যালোচনার আওতায় এই পদক্ষেপ নিচ্ছে দেশটি। পদক্ষেপ সংশ্লিষ্ট দুই ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা রবিবার ভারতের সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসকে এই তথ্য জানিয়েছেন।

গত ২১ জুন ওই ক্যাডার পর্যালোচনার আদেশ  দেওয়া হয়েছে। এর আওতায় ১২ লাখ সেনা সদস্যের বাহিনী থেকে দেড় লক্ষাধিক সদস্য কমিয়ে ফেলাসহ আধুনিক সরঞ্জাম ক্রয় ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বাহিনীতে থাকা সদস্যদের দক্ষতা বাড়ানো হবে।

দেশটির সামরিক সচিব লেফটেন্যান্ট জেনারেল জেএস সাধুর নেতৃত্বে ১১ সদস্যের একটি দল এই পরিকল্পনা পর্যালোচনা করে দেখছে। আশা করা হচ্ছে চলতি মাসের শেষ নাগাদ প্রাথমিক একটি পর্যালোচনা প্রতিবেদন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াতের কাছে হস্তান্তর করা হবে। আগামী নভেম্বরে দলটি তাদের চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এই উদ্যোগ সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা হিন্দুস্তান টাইমসকে বলেন, আগামী দুই বছরের মধ্যে কিছু কিছু পদ একত্রীকরণের মাধ্যমে ৫০ হাজার সেনা কমিয়ে ফেলা হবে। আগামী ২০২২-২৩ সাল নাগাদ আরও এক লাখ সেনা সদস্য কমানো হতে পারে। তবে এর সবকিছুই এখনও পর্যালোচনার পর্যায়ে রয়েছে।

অন্য খবর  আবারও সংঘাতের আশঙ্কা করছেন ইমাম রশিদি

আরেক কর্মকর্তা বলেন, যেসব পদ একত্রীকরণ করা হবে তার মধ্যে থাকবে সেনা সদর দফতরের রসদ ইউনিট, যোগাযোগ ব্যবস্থাপনা, সংস্কার সুবিধা এবং অন্যান্য প্রশাসনিক ও সহায়ক ক্ষেত্রের বিভিন্ন পদ।

সদস্য সংখ্যা কমানো হলেও নতুন পর্যালোচনায় সেনাবাহিনীর ভবিষ্যৎ প্রয়োজনীয়তা, সেনা কর্মকর্তাদের পেশাগত উন্নয়ন, বিভিন্ন ইউনিটের কর্মকর্তাদের নতুন নামকরণ ছাড়াও আরও নানা বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকবে। চলমান পর্যালোচনায় সেনা কর্মকর্তাদের ব্রিগেডিয়ার পদ বিলুপ্ত করারও প্রস্তাব থাকতে পারে।

২০১৭ সালের আগস্ট মাসে ভারত সরকার যুদ্ধে ক্ষেত্রে মোতায়েন করা যায় এমন ৫৭ হাজার সদস্য বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিল।  সেনাবাহিনীর যুদ্ধ সক্ষমতা ও রাজস্ব ব্যয় যুগোপযোগী করতে গঠিত একটি কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী ওই ঘোষণা দেয় সরকার।

Comments

comments