ট্রাম্পের ‘বর্ণবাদী’ বিজ্ঞাপন প্রত্যাখ্যান মার্কিন নেটওয়ার্কগুলোর

31
ডোনাল্ড ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনি প্রচারণা শিবিরের একটি ‘বর্ণবাদী’ বিজ্ঞাপন প্রত্যাখ্যান করেছে দেশটির শীর্ষস্থানীয় নেটওয়ার্কগুলো। এ তালিকায় রয়েছে ফেসবুক থেকে শুরু করে সিএনএন ও এনবিসি’র মতো প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যমগুলো। এমনকি ট্রাম্পের পছন্দের টেলিভিশন নেটওয়ার্ক হিসেবে পরিচিত ফক্স নিউজ-ও বিজ্ঞাপনটি প্রচারে অস্বীকৃতির কথা জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী নির্বাচনের মাত্র একদিন আগে বর্ণবাদের অভিযোগে বিজ্ঞাপনটি প্রত্যাহার করলো দেশটির শীর্ষস্থানীয় নেটওয়ার্কগুলো। মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।

৩০ সেকেন্ডের বিজ্ঞাপনটি গত সপ্তাহে অনলাইনে ছাড়া হয়। এটি তৈরি করেছে ট্রাম্পের ২০২০ সালের পুনর্নির্বাচন প্রচারণা শিবির। বিজ্ঞাপনটিতে ২০১৪ সালে দুই পুলিশ কর্মকর্তাকে খুনের দায়ে অভিযুক্ত মেক্সিকো থেকে আসা এক অবৈধ অভিবাসীকে দেখা গেছে আদালত কক্ষে। লাতিন আমেরিকান অভিবাসীরা মেক্সিকো হয়ে সীমান্তের দিকে এগিয়ে আসছে, এমন দৃশ্যের পাশাপাশি ওই বিষয়টি দেখানো হয়েছে। ফলে বিজ্ঞাপনটি নিয়ে সমালোচনা তৈরি হয়েছে। সমালোচকরা একে অসংবেদনশীল, বর্ণবাদী বা জাতিগত বিভেদ সৃষ্টিকারী বিজ্ঞাপন হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আর এসব সমালোচকদের মধ্যে রয়েছেন খোদ ট্রাম্পের নিজ দল রিপাবালিকান পার্টির সদস্য থেকে ট্রাম্প সমর্থক হিসেবে পরিচিত টিভি চ্যানেল ফক্স নিউজ-ও।

অন্য খবর  আন্তর্জাতিক মহলের সতর্কবার্তায় মিয়ানমার সরকার ভীত নয়: সু চি

সিএনএন, এনবিসি বা ফক্স নিউজের মতো সংবাদমাধ্যমগুলোর বাইরে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকও ওই বিজ্ঞাপন নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, অর্থের বিনিময়ে আর বিজ্ঞাপনটি প্রচার করবে না তারা। অর্থাৎ, এটি বুস্ট করার সুযোগ থাকছে না। তবে ব্যবহারকারীরা চাইলে এটি শেয়ার করতে পারেন।

মঙ্গলবারের মধ্যবর্তী নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক ভোটার অংশ নিতে পারেন বলে ধারণা করছে মার্কিন সংবাদমাধ্যমগুলো। গত অর্ধশত বছরের মধ্যে এবার সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোটার তাদের রায় দিতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ নির্বাচনেই নির্ধারিত হবে মার্কিন কংগ্রেসের নিয়ন্ত্রণ কার হাতে যাবে।

Comments

comments