জয়পাড়া কলেজে পুলিশের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

373
জয়পাড়া কলেজে পুলিশের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

ঢাকা-দোহার জয়পাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ৫ শিক্ষার্থীকে মারধরের প্রতিবাদে ঢাকা জেলার দোহার উপজেলার প্রানকেন্দ্র জয়পাড়াতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জয়পাড়া কলেজ ছাত্রলীগ। এসময় মিছিল থেকে দোহার থানার (পুলিশ) তদন্ত কর্মকর্তা  ইয়াসিন মুন্সির পদত্যাগের দাবি করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও জয়পাড়া কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জানা যায়, কলেজে নতুন ভর্তি হওয়া ১ম বর্ষের শিক্ষার্থীরা ক্লাস না করে বাইরে ঘোরাঘুরি করে এমন অভিযোগে কলেজের অধ্যক্ষ গত কয়েকদিন ধরেই ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস মুখি করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। কোন কিছু তেই কাজ না হওয়ায় মঙ্গলবার তিনি পুলিশের সহায়তা চান। পুলিশ এসে কলেজের বাইরে ছাত্রদের ভিতরে নেয়ার চেষ্টা চালায় ও বহিরাগত ও মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালায়, বলে জানায় থানা কতৃপক্ষ। এসময় কলেজের বাইরে মাদক ব্যবসায়ী ও ছাত্রদের মাঝে কে অপরাধী বুঝতে না পাড়ায় বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়ে। এসময় কলেজের ৩ শিক্ষার্থীকে চড়-থাপ্পর ও একজন শিক্ষার্থীকে কান ধরে উঠাবসা করানো হয়। এতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে কলেজ ক্যাম্পাসে।

জয়পাড়া কলেজ শাখা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পদ শাহাদাৎ হোসেন ও দোহার উপজেলা ছাত্রলীগের পাঠাগার সম্পদ আবদুর রহমান শান্তর নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল জয়পাড়া কলেজ থেকে বের হয়ে উপজেলা পরিষদ হয়ে আবার কলেজ ক্যাম্পাসে ফিরে আসে। সেই সময় তারা দোহার থানা ওসি(তদন্ত) ইয়াসিন মুন্সিকে প্রত্যাহারেরে দাবিসহ তার বিরুদ্ধে স্লোগান দেয়। এই সময় কলেজ ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেয় জয়পাড়া কলেজ ছাত্রলীগ। একই সাথে কলেজের গেটের বাইরে অবস্থান নেয় দোহার থানা পুলিশ।

অন্য খবর  পদ্মায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত: দোহার নবাবগঞ্জে চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

এই ব্যাপারে জয়পাড়া কলেজ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আওলাদ হোসেন নিউজ৩৯কে বলেন, পুলিশ যাদের অন্যায়ভাবে মেরেছে তারা সবাই জয়পাড়া কলেজ ছাত্রলীগের কর্মী।

দোহার থানা ওসি তদন্ত ইয়াসিন মুন্সি নিউজ৩৯কে বলেন, কলেজের সামনে মাদক ব্যবসায়ীদের আনাগোনার খবর পেয়ে কলেজের অধক্ষ্য সিদ্দিকুর রহমান থানায় ফোন দিলে আমি ফোর্স নিয়ে জয়পাড়া কলেজের সামনে উপস্থিত হলে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। এসময় কলেজের কিছু ছাত্রকে তাদের সাথে দেখায় তাদের একটু শাষন করে আবার কলেজের ক্লাসে দিয়ে আসি। এই সময় কেউ ব্যাপারটার রঙ দিয়ে মিছিল করে। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেনের উপস্থিতিতে পুরো ব্যাপারটা মীমাংসা হয়।

Comments

comments