জাপানের ২০০ ব্যবসায়ী প্রতিনিধির সাথে বৈঠক: আরও বিনিয়োগের আহবান সালমান এফ রহমানের

65

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, আমাদের অর্থনীতি এখন শক্তিশালী ও স্থিতিশীল। রাজনৈতিক নেতৃত্বও দারুণ। আরও বেশি জাপানের বিনিয়োগ এলে আমরা খুবই খুশি হবো। বাংলাদেশ সরকারের ব্যবসাবান্ধব নীতি, বিশাল অভ্যন্তরীণ বাজার, মূল বাজারে প্রবেশের কৌশলসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিতে জাপানি ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান সালমান এফ রহমান।

জাপানের বেসরকারি খাতের ২০০টির বেশি প্রতিনিধির সাথে ওয়েবিনার (ওয়েব সেমিনার) করেছে বাংলাদেশ। জাপানের বিনিয়োগকে আকৃষ্ট করতেই এই ওয়েবিনার করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশের শীর্ষ পর্যায়ের কর্তা-ব্যক্তিরা জাপানিদের আশ্বস্ত করে বলেছেন, বাংলাদেশে তারা সবধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন। পাশাপাশি বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূতও এ দেশে বিনিয়োগে তার দেশের ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করেছেন। বুধবার (২২ জুলাই) অনুষ্ঠিত ‘ডায়ালগ টু ড্রাইভ জাপানিজ ইনভেস্টমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক ওয়েবিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বিশ্ব ব্যাংকের ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) ও জাপান ইন্টারন্যাশনাল করপোরেশন এজেন্সি (জাইকা)। বৃহষ্পতিবার (২৩ জুলাই) এ তথ্য জানায় বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)।
জাপানি ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করে এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, জাপান সরকারের সহযোগিতায় খুব দ্রুতই বাংলাদেশের পরিবর্তন ঘটবে। মেট্রোরেল, হযরত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের প্রসার, মহাখালী-মাতারবাড়ি ইনটেগরেটেড ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ (এমআইডিআই) প্রকল্পগুলো বাংলাদেশের ক্ষেত্রে গেম চেঞ্জার হিসেবে কাজ করবে। বাংলাদেশকে সহযোগিতা করার জন্য জাপান সরকারের একগুচ্ছ পরিকল্পনা রয়েছে। আমরা খুব দ্রুতই সেসব বাস্তবায়ন করতে পারব।

অন্য খবর  মাহবুবুর রহমানকে সংবর্ধনা দিবে দোহার সমিতি

বাংলাদেশে নিযুক্ত জাইকার চিফ রিপ্রেজেন্টেটিভ হায়াকাওয়া ইউহো বলেন, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার কেবল প্রবেশপথ নয়, এটা দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার প্রবেশপথ। এটি এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের দ্রুত উন্নয়নশীল অর্থনীতিরও দেশ।

Comments

comments