জলাবদ্ধতায় চরম ভোগান্তিতে দোহার পৌরবাসী

238
দোহার পৌরসভা

দীর্ঘদিন বৃষ্টির ফলে জলাবদ্ধতার চরম ভোগান্তির স্বীকার ঢাকার দোহার উপজেলার দোহার পৌর এলাকার বাসিন্দারা। পৌরসভা গঠনের পর থেকে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় টানা কয়েকদিন ধরে বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যায় বাড়িঘর। দোহার পৌরসভার এই স্থায়ী জলাবব্ধতা এখন পৌরবাসির নিত্যদিনের সঙ্গী। সামান্য বৃষ্টি নামলেই পৌর এলাকায় পানি জমে থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জনগণকে ।

জানা যায়, বর্তমানে দোহার পৌরসভা প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হলেও গঠনের পর নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত পৌর এলাকার জনগন। দোহার পৌরবাসীর প্রধান সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে জলবদ্ধতা।

পৌরসভায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি জমে তলিয়ে যায় অধিকাংশ এলাকা। অতি বর্ষনে কোন কোন এলাকা হাঁটু পরিমান পানি জমে আবার রাস্তা-ঘাটও পানিতে তলিয়ে যায়। ফলে পৌরবাসীর চলাচলে ক্ষেত্রে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে; ব্যহত হচ্ছে কাজ কর্মও।

দোহার পৌরসভার লটাখোলা নতুন বাজার রাস্তা, জয়পাড়া, খাড়াকান্দা, চৌধুরীপাড়া, ইউসুফপুর, এলাকায় বৃষ্টির পানি জমে দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে এতে করে দেখা যাচ্ছে মশা সেই জলাবদ্ধতার পানিতে ডিম পাড়ছে আর এই মশা বংশ বিস্তার করছে।

অন্য খবর  ঢাকা-১ আসন পুনরুদ্ধার করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে উপহার দিতে চাই; নিউজ৩৯ এর সাক্ষাৎকারে আবু আশফাক

এই জলাবদ্ধতার কারনে  দেখা যাচ্ছে কোন কোন এলাকায় ঘরের ভিতরে পানি উঠে গেছে । পানি জমে থাকার কারনে নিত্য প্রয়োজনীয় কাজকর্ম ও ঘর গৃহস্থালীর কাজ করতে মারাক্তক বিঘ্ন ঘটে। বিশেষ করে তাঁত শিল্প অধ্যুষিত এলাকাগুলো বৃষ্টির পানি জমে থাকায় তাঁতীদের লুঙ্গি তৈরির কাজকর্ম বন্ধ থাকে। ফলে সময়মতো পাইকারদের লুঙ্গি সরবরাহ করতে পারছেন না তারা।

বিশেষ করে স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীরা পানি পায়ে মাড়িয়ে তারপর স্কুলে যেতে হয়। দোহার পৌরসভার  উত্তর জয়পাড়া চৌধুরী পাড়ার বাসিন্দা  জাহানারা বেগম জানান, বৃষ্টির পানি জমে বছরের অধিকাশং সময় এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে থাকায় বাড়ি থেকে বের হওয়া যায় না।

খাড়াকান্দা এলাকার রাসেল জানান, পৌরসভার গঠনের পর থেকে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় বছরের পর বছর আমাদের চরম ভোগান্তি পোতাহে হচ্ছে। তাছাড়া পৌরসভা নাকের ডগায় রাস্তা খাড়াকান্দা মসজিদ থেকে আবেদ আলী বাড়ি পর্যন্ত এই রাস্তাটি একটু বৃষ্টি নামলেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয় আর তখন মানুষ চলাচলের জন্য সমস্যা হয় আমরা শুধু পৌরসভায় টেস্ক দিয়ে যাচ্ছি কিন্তু কোন রকম সুবিধা পাচ্ছি না।

অন্য খবর  শিগগিরই নবাবগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন হবে: সালমা ইসলাম এমপি

এলাকার অন্যান্য বাসিন্দারা ক্ষোভের সাথে বলেন, এ সমস্যা দীর্ঘদিনের হলেও দোহার পৌরসভার জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য কার্যকরী কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় বছরের পর বছর সীমাহীন কষ্ট পোহাতে হচ্ছে আমাদের । এ এলাকার শিশুরা সারাদিন পানির মধ্যে হাটাচলার কারনে বিভিন্ন পানিবাহিত রোগের সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। এ অবস্থা দীর্ঘদিনের হলে এ থেকে পরিত্রান পাচ্ছে না দোহার পৌরসভার জনগন। নিয়মিত দোহার পৌরসভার জনগন উন্নয়ন কর পরিশোধ করে আসলেও বৃষ্টির পানি নিস্কাষনের কোন উদ্যোগ হাতে না নেওয়ায় এভাবেই কাটছে বছরের পর বছর।

Comments

comments