ছাত্রলীগের কমিটি: বিতর্কের শেষ নেই

41

কেন্দ্রীয় সম্মেলনের এক বছর পর গত ১৩ মে বিকালে ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মধুর ক্যানটিনে সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করতে গিয়ে ছাত্রলীগেরই একাংশের হামলায় আহত হন নতুন কমিটিতে পদবঞ্চিত ১০ থেকে ১২ জন। রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী দিশার কপালে ১৮টি সেলাই পড়ে।

পদবঞ্চিতদের অভিযোগ- ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর অনুসারীরাই পরিকল্পিতভাবে তাদের ওপর হামলা চালিয়েছেন।

সদ্য ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদপ্রাপ্ত ১৭ জনের বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে বিভিন্ন অভিযোগ পেয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। অভিযোগের সত্যতা যাচাই বাছাই করতে ২৪ ঘন্টা সময় বেধে দিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

বুধবার রাত ১২টায় রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এসব কথা বলেন।

ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, আমাদের গঠনন্ত্রের যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আমরা চেষ্টা করেছি সেটা মানার। কিন্তু তারপরও যদি কারো বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকে যেমন বিবাহিত, অছাত্র, মুক্তিযুদ্ধেও চেতনা বিরোধীসহ গঠনতন্ত্র বিরোধী কোনো অভিযোগ থাকে তাহলে তাকে আমরা অব্যাহতি দেবো। তারা কেউ আমাদের কমিটিতে থাকতে পারবে না।

তিনি বলেন, কমিটি ঘোষনার পরে আমরা পত্র-পত্রিকা ও সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে যাাদের নামে অভিযোগ পেয়েছি তাদের ২৪ ঘণ্টা সময় বেধে দিচ্ছি। এর মধ্যে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ সন্দেতাতীতভাবে প্রমাণ হবে তাদের অব্যাহতি দেয়া হবে। তাদের জায়গায় যারা ক্লিন ইমেজের রয়েছেন। যারা বঞ্চিত হয়েছে তাদের স্থান দেয়া হবে।

১৪ মে দুপুরে ওই হামলার বিচারের দাবিতে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে নতুন কমিটির সবাইকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার পাশাপাশি হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন পদবঞ্চিতরা। তারা আজ দুপুর ১টায় সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে মানববন্ধন করবেন এবং প্রয়োজনে অনশনে বসবেন বলেও জানান।

এদিকে, ১৩ মে’র হামলা ঘটনায় ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, আইনবিষয়ক সম্পাদক ফুয়াদ হোসেন শাহাদাৎ ও তথ্য গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক পল্লব কুমার বর্মণকে নিয়ে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

পদবঞ্চিত অনেকের অভিযোগ- বিতর্কিত এই কমিটিতে স্থান পেয়েছেন হত্যা-চেষ্টা মামলার আসামি, মাদকসেবী, বিএনপি-জামায়াত ও রাজাকার পরিবারের সন্তান, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত, সন্ত্রাস-চাঁদাবাজিতে যুক্ত, বিবাহিত, সংগঠনে নিষ্ক্রিয় এবং অ-ছাত্ররাও। তাছাড়া, সংগঠনের সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক রাব্বানীর বিরুদ্ধে উঠেছে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ।

কমিটিতে আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক পদ পাওয়া মো. রাকিনুল হক চৌধুরী কেন্দ্রীয় সভাপতি শোভনের আপন ছোটভাই। তিনি ছাত্রলীগে নিষ্ক্রিয় বলে জানা গেছে। এছাড়াও, ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর নিজ জেলা মাদারীপুর থেকেই ২২ জন কমিটিতে স্থান পেয়েছেন।

অপরদিকে, নবগঠিত কমিটিতে ঠাঁই না পাওয়া ঢাবির বিজ্ঞান অনুষদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জেরিন দিয়ার অভিযোগ আরও গুরুতর। তিনি জানান, এর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সংগঠনের নারী কর্মীদের নিয়ে কটূক্তিপূর্ণ লেখনীর কারণে গোলাম রাব্বানীকে জবাব দিতে বলায় রোকেয়া হল ছাত্রলীগ সভাপতি বিএম লিপি আক্তার ও তার সঙ্গে রাব্বানীর প্রকাশ্য বিরোধ বাঁধে।

এরপর গত বছরের সেপ্টেম্বরে শোভনের সঙ্গে রাজনীতি শুরু করলেও নানান বিড়ম্বনার শিকার হয়েছেন জানিয়ে জেরিন দিয়া বলেন, “অনেক সময় রাত ১০টার পর হলের মেয়েদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে এসে দেখা করতে বলতেন শোভন।”

বেশ কয়েকবার শোভনের কাছ থেকে কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার আশ্বাস পেয়েছিলেন বলেও জানান তিনি। এর আগে, ফেসবুকে ছড়িয়ে যাওয়া ছাত্রলীগের ভুয়া ২০১ সদস্যবিশিষ্ট কমিটিতে নিজের নাম দেখতে না পেয়ে শোভনকে জিজ্ঞেস করলে, রাব্বানীর কারণে তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে বলে শোভন জানান- অভিযোগ দিয়ার।

অন্য খবর  কাতারে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই বাংলাদেশি নিহত

এছাড়াও শোভনের ছোটভাই মো. রাকিনুল হক চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা বিপ্লব হাসান পলাশ, এমনকি শোভনের গাড়ির ড্রাইভার ফারুককেও সমীহ করে চলতে ছাত্রলীগের নারী সদস্যদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল বলেও অভিযোগ করেন পদবঞ্চিত এই নেত্রী।

দিয়ার ভাষ্য, “শোভন-রাব্বানী দুজনই আমার মতো অন্য ত্যাগী কর্মীদের সঙ্গে বেঈমানি করেছেন।”

এ নিয়ে ১৩ মে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এক প্রতিবাদী পোস্ট দেওয়ার পরদিন তিনি বলেছেন, “আমি কীসের ভিত্তিতে নেতা হয়েছি তার এনএসআই রিপোর্ট দেখার আগে, শোভন-রাব্বানী বিবাহিতদের কোন সম্পর্কের ভিত্তিতে পদ দিয়েছেন তা খতিয়ে দেখা দরকার।”

আজ (১৫ মে) তিনি এই প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করে জানিয়েছেন- “জীবননাশের হুমকিতে আছি।”

ঢাবির আইন অনুষদ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. শরিফুল হাসান শুভ এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক পরিবেশবিষয়ক উপ-সম্পাদক মো. রুবেল রানা জানান, কিশোরগঞ্জের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযুক্ত সোহরাব উদ্দিনের ছেলে তৌফিকুল হাসান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির পদ পেয়েছেন। পাকুন্দিয়া উপজেলার আউলিয়াপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী বাদী হয়ে ২০১৮ সালের ৭ আগস্ট আমলি আদালত-৩ এ মামলাটি দায়ের করেছিলেন।

গোপালগঞ্জে এক ব্যক্তিকে হত্যা-চেষ্টা মামলার প্রধান আসামি সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। শেখ কুদ্দুস নামে এক ব্যক্তিকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় ২০১০ সালের ৩ মে তার বিরুদ্ধে গোপালগঞ্জ থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

সহ-সম্পাদক পদ পাওয়া রনি চৌধুরী মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের কোলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আসিফ হাসান হাওলাদার হত্যা মামলার আসামি। তার বিরুদ্ধে স্থানীয় যুবলীগের সম্মেলনে হামলার অভিযোগ গণমাধ্যমে এসেছিলো।

সহ-সভাপতি আরেফিন সিদ্দিকী সুজনকে এক সময় ইয়াবা সেবন, মাদক রাখা ও বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হলে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে মাস্টারদা সূর্যসেন হল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিলো। ২০১৬ সালে সূর্যসেন হলে তার কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ ও হল প্রশাসন।

সহ-সভাপতি বরকত হোসেন হাওলাদার শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের গণরুমের বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে ভয় দেখানোর দায়ে ২০১১ সালে ঢাবির ছাত্রত্ব হারান। এর আগে ২০১০ সালের ৩০ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বরকতকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

সূর্য সেন হলের ৫৭২ নম্বর কক্ষ ভেঙে চুরির ঘটনায় প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক মেশকাত হোসেনকে ২০১৪ সালে ঢাবি থেকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়।

বঙ্গবন্ধু হলের প্রাধ্যক্ষকে হুমকি দেওয়ার ঘটনায় সহ-সভাপতি পদপ্রাপ্ত ইয়াজ আল রিয়াদকে ২০১৪ সালের ১৩ আগস্ট হল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়।

সহ-সভাপতি আতিকুর রহমান খানের বিরুদ্ধে রয়েছে মাদক ও ইয়াবা সেবন এবং মাদকব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ। ঢাবির মল চত্বরে গত ১২ এপ্রিল বৈশাখী কনসার্ট মঞ্চে আগুন দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের পদ পাওয়া প্রদীপ চৌধুরী ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে পরীক্ষায় নকলের দায়ে ঢাবি থেকে তিন বছরের জন্য বহিষ্কৃত হয়েছিলেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধেও রয়েছে পহেলা বৈশাখের কনসার্ট মঞ্চে আগুন দেওয়ার অভিযোগ।

সহ-সভাপতি মো. তৌহিদুর রহমান হিমেল প্রতিষ্ঠিত ঠিকাদারি ব্যবসায়ী। তিনি রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) পড়াশোনা শেষ করে ঠিকাদারি ব্যবসায় যুক্ত হন।

সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসানের পরিবার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

অন্য খবর  লন্ড‌নে বাংলাদেশি গৃহবধূ হত্যায় অভিযুক্ত স্বামী, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে প্রেরণ

আরেক সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসান তুষারের বিরুদ্ধেও বৈশাখী কনসার্ট মঞ্চে আগুন দেওয়ার অভিযোগ আছে।

এছাড়াও, সহ-সভাপতি পদপ্রাপ্ত রুহুল আমিন গাজীপুর সদর উপজেলার কাউলতিয়া ইউনিয়ন ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক ছিলেন। তিনি ২০০৬ সালের দিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এবং বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এম এ মান্নানের সঙ্গে রাজনীতি করলেও বর্তমানে গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের রাজনীতি করেন। রুহুল আমিন এখন গোলাম রাব্বানীর অনুসারী বলে জানা গেছে। এছাড়াও জীবদ্দশায় তার বাবার জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগও রয়েছে।

পদবঞ্চিত রুবেল রানার অভিযোগ, “রহুল আমিনকে টাকার বিনিময়ে পদ দেওয়া হয়েছে।”

আরেক পদবঞ্চিত শরিফুল ইসলাম শুভর অভিযোগ, সহ-সম্পাদক পদপ্রাপ্ত সামিয়া সরকার শেরপুরের রাজীবুল ইসলাম রাজিব নামের এক ব্যক্তিকে ২০১২ সালে বিয়ে করেন এবং ২০১৬ সালে তালাক দেন। তাছাড়া সামিয়ার বাবা আবদুস সবুর সরকার গাজীপুরের কালিয়াকৈর পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর।

অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার সুজন ভুঁইয়াকেও এবারের কমিটিতে সহ-সভাপতির পদ দেওয়া হয়েছে। দপ্তর সম্পাদক আহসান হাবীব সাবেক চাকরিজীবী এবং তার বিরুদ্ধেও ঢাবিতে বৈশাখী কনসার্ট মঞ্চে আগুন দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

যদিও ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫ এর গ উপ-ধারায় বলা হয়েছে, সরকারি চাকরিতে নিয়োজিত কোনো ছাত্র ছাত্রলীগের কর্মকর্তা হতে পারবেন না।

ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের ছেলে আশিক খানের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সম্পাদক পদ পাওয়ার বিষয়ে মো. রুবেল রানার অভিযোগ, “মাঠ পর্যায়ের রাজনীতিতে আশিক খানের কোনো অংশগ্রহণ ছিলো না। বাবার ক্ষমতা ব্যবহার করে সে নেতা হয়েছে।”

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সভাপতি পদ পাওয়া তানজিল ভূঁইয়া তানভীর, সুরঞ্জন ঘোষ এবং সোহেল রানার বয়স ৩০ বছরের বেশি। সংগঠনের গঠনতন্ত্রের নিয়মানুযায়ী তাদের সদস্য পদই থাকার কথা নয়।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫ এর ক উপ-ধারায় বলা হয়েছে, অনূর্ধ্ব ২৭ বছর বয়সী বাংলাদেশের যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত যে কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র বা ছাত্রী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রাথমিক সদস্য হতে পারেন।

পদবঞ্চিত ছাত্রলীগ নেত্রী জেরিন দিয়ার কাছ থেকে আরও জানা গেছে- কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন বিবাহিত। শোভনের স্ত্রী কুড়িগ্রামের মেয়ে বীথি একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। এছাড়াও, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়বিষয়ক সম্পাদক আসিফ ইকবাল অনিক এবং উপ-প্রচার সম্পাদক সিজাদ আরেফিন শাওনও বিবাহিত বলে জানা গেছে।

ছাত্রলীগের পদবঞ্চিত একাধিক নেতা-কর্মীর কাছ থেকে পাওয়া তথ্যে জানা যায়, কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহ-সভাপতি পদ পাওয়া সোহানী হাসান তিথি, সাংস্কৃতিকবিষয়ক উপ-সম্পাদক পদ পাওয়া আফরিন লাবনি, সহ-সম্পাদক পদ পাওয়া আনজুমান আরা আনু বিবাহিত। এছাড়াও সহ-সভাপতি ইসরাত কাসফিয়া ইরাও বিবাহিত বলে অভিযোগ অনেকের। আনুর বিরুদ্ধে নিয়োগ পরীক্ষা ও ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগও রয়েছে।

ছাত্রলীগের গণতন্ত্রের ২৩ এর ক উপ-ধারায় বলা হয়েছে, কোনো সদস্য বিয়ে করলে… পরবর্তী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অধিকার হারিয়ে ফেলবেন।

১৩ মে কমিটি ঘোষণার দুই ঘণ্টার মধ্যেই কমিটিতে ছাত্রদলের নেতা এবং বিবাহিতদের পদ দেওয়ার অভিযোগ তুলে পদত্যাগ করেছেন উপ-কর্মসূচী ও পরিকল্পনা সম্পাদক পদপ্রাপ্ত আল মামুন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১১ এবং ১২ মে ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের প্রায় আড়াই মাস পর ৩১ জুলাই রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি এবং গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়।

Comments

comments