বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ঢাকার অবিভক্ত সিটি করপোরেশনের মেয়র সাদেক হোসেন খোকার লাশ আসবে বাংলাদেশে পৌঁছাবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) সকালে। হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তার লাশ গ্রহণ করবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। ঢাকায় একাধিক জানাজা শেষে সাদেক খোকাকে জুরাইন গোরস্থানে দাফন করা হবে। বিএনপির চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য জানান।

প্রসঙ্গত, সোমবার (৪ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টার দিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাদেক হোসেন খোকা মারা যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। তার মৃত্যুতে দেশের ডান-বাম ও ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দলগুলোর নেতারা শোক জানান।

এদিকে, বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানায়, বুধবার বাংলাদেশ সময় ভোরে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিমানে সাদেক হোসেন খোকার লাশসহ তার স্বজনরা রওয়ানা হন। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে দুবাইতে যাত্রাবিরতি করে লাশবহন করা বিমান।

শায়রুল কবির খান বলেন, ‘বৃহস্পতিবার সকাল ৮.২০ মিনিটে হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে সাদেক হোসেন খোকার লাশ পৌঁছাবে। সেখানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জ্জা আব্বাস, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স ও শামা ওবায়েদসহ দলের নেতাকর্মীরা উপস্থিত থাকবেন।’

অন্য খবর  দোহার নবাবগঞ্জ পাচ্ছে ২ মন্ত্রী!

সাদেক হোসেন খোকা বিএনপির ঢাকা মহানগরের প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ১৯৫২ সালের ১২ মে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন খোকা। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকার সময় ১৯৭১ সালে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৯১ সালে তিনি বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরে তিনি ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০২ সালে তিনি ঢাকার মেয়র নির্বাচিত হন।

সাদেক হোসেন খোকা মারা যাওয়ার পর বিএনপি ও দলটির অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে দোয়া মাহফিল আয়োজন করা হয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই তাকে ঘিরে শোকসভার আয়োজন করা হবে, এমন আলোচনা চলছে দলটিতে।

শায়রুল কবির খাঁন বলেন, ‘সাদেক হোসেন খোকার লাশ ঢাকায় আসার পর সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় নেওয়া হবে। সেখানে তার দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হবে। এরপর বিএনপির নয়া পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা জানাবেন এবং সেখানে তৃতীয় জানাজা হবে। ’

উল্লেখ্য, সোমবার (৪ নভেম্বর) নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় এশার নামাজের পর জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টার মসজিদে খোকার প্রথম জানাজা হয়। ওই জানাজায় বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নেতারা, দূতাবাসের কর্মকর্তাসহ সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা অংশ নেন। জানাজা শেষে তাকে গার্ড অব অনার জানানো হয়।

অন্য খবর  হুদাকে জোটে নিতে আপত্তি শরিকদের

বিএনপির সূত্র জানায়, দলের অফিসের সামনে জানাজা হওয়ার পর বিএনপির ঢাকার প্রভাবশালী এই নেতার লাশ তার অনুরাগী ও ক্রীড়া সংগঠকদের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য নেওয়া হবে মতিঝিলের ব্রাদার্স ক্লাবে। সেখান থেকে ধূপখোলা মাঠে হবে চতুর্থ জানাজা। এরপর জুরাইন গোরস্থানে খোকার মা সালেহা খাতুনের কবরে সাদেক হোসেন খোকাকে দাফন করা হবে।

শায়রুর কবির খান জানান, ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন উজ্জ্বলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের মায়ের কবরেই দাফন করা হবে সাদেক হোসেন খোকাকে।

Comments

comments