উ. কোরিয়ায় উনের সঙ্গে বৈঠক করবেন আসাদ

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ জানিয়েছেন, তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পিয়ংইয়ং সফরে যাচ্ছেন। এর মধ্য দিয়ে পিয়ংইয়ংয়ে প্রথম কোনো রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানের সঙ্গে উনের বৈঠক হতে যাচ্ছে। গতকাল রবিবার উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টি অব কোরিয়ার কেন্দ্রীয় কমিটির দাপ্তরিক সংবাদপত্র রোডং সিনমুন এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনটিতে আসাদ-উন বৈঠককটি কবে হচ্ছে, তা জানানো হয়নি। আগামী ১২ জুন সিঙ্গাপুরে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে উনের সম্ভাব্য বৈঠকের পর কোনো একসময় এই বৈঠক হতে পারে। এ ছাড়া বৈঠকের বিষয়ে আর কিছু জানা যায়নি। বৈঠকটির সত্যতার ব্যাপারে সিরিয়ার সরকার বা রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা হতে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

উত্তর কোরিয়ার পত্রিকা রোডং সিনমুন জানায়, গত বুধবার সিরিয়ায় নিযুক্ত উত্তর কোরিয়ার নতুন রাষ্ট্রদূত পরিচয়পত্র পেশ করতে গেলে প্রেসিডেন্ট আসাদ এ ঘোষণা দেন।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক দৃঢ় ভিত্তির প্রতিষ্ঠিত বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, দামেস্ক ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করছিলেন তাঁর বাবা সিরিয়ান নেতা হাফেজ আল-আসাদ। প্রেসিডেন্ট বাশার তাঁর আস্থা ব্যক্ত করে বলেন, একদিন দুই কোরিয়া পুনরেকত্রীত হবে। আসাদ উত্তর কোরিয়ার রাজনৈতিক কার্যক্রমের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রাখা এবং দুই দেশের সম্পর্ককে আরো এগিয়ে নিতে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

অন্য খবর  পরমাণু অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করল উত্তর কোরিয়া

রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাতে বাশার আল-আসাদ সম্প্রতি দুই কোরিয়ার নেতাদের মধ্যে শীর্ষ বৈঠকের কথা ইঙ্গিত করে বলেন, ‘কোরীয় উপদ্বীপে অসাধারণ ঘটনাটিকে স্বাগত জানিয়েছে বিশ্ব। অসামান্য রাজনৈতিক কর্মশক্তি এবং মহান নেতার কিম জং উনের প্রজ্ঞাময় নেতৃত্বের কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে।’ আসাদ আরো বলেন, ‘আমি নিশ্চিত যে শেষ পর্যন্ত তিনি (উন) চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করবেন এবং দুই কোরিয়ার পুনরেকত্রীকরণের বিষয়টিও অনুধাবন করতে পারবেন।

বাশারের সিরিয়া ও কিমের  উত্তর কোরিয়া দুটি রাষ্ট্রই দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্রের চাপের মুখে রয়েছে। আবার এ দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে সামরিক সহযোগিতাও চলে আসছে।

Comments

comments