ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আবাদির সঙ্গে আল সদরের জোট গঠন

25
মুক্তাদা আল সদর

নতুন সরকার গঠনের লক্ষ্যে জোট গঠনের ঘোষণা দিয়েছেন ইরাকের প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদি ও শিয়া নেতা মুক্তাদা আল সদর। গত মাসে সংসদীয় নির্বাচনের পর থেকে চলা রাজনৈতিক টানাপোড়েনের পর দ্রুত সরকার গঠনের জন্যই ইরাকের দুই শীর্ষ নেতা এই জোট গঠন করলেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল  জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

সদরের সাইরুন জোট মে মাসের নির্বাচনে ৫৪টি আসনে জয়ী হয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়। আর ৩২৯ আসনের ইরাকি পার্লামেন্টের মাত্র ৪২টিতে জয়ী হয়ে প্রধানমন্ত্রী আবাদির জোট তৃতীয় অবস্থানে থাকে। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ইরানপন্থী শিয়া নেতা হাদি আল আমিরির দল পেয়েছে ৪৭টি আসন। এর আগে তার সঙ্গেও জোট গঠনের কথা জানিয়েছিলেন আল সদর।

মে মাসের নির্বাচনে শীর্ষ তিন দলই শিয়াপন্থী। তারা সবাই মিলে ১৪০টিরও বেশি আসনে জয়লাভ করেছে। দেশটিতে সরকার গঠনের জন্য কমপক্ষে ১৬৫ আসনের প্রয়োজন। তাই সুন্নি আরব ও কুর্দি রাজনীতিকদেরও জোটে টানার চেষ্টা করছে তারা।

শনিবার শিয়াদের পবিত্র নগরী নাজাফে তিন ঘণ্টার বৈঠক শেষে আল আবাদি ও আল সদর একটি যৌথ বিবৃতি দেন। বিবৃতিতেই জোট গঠনের ঘোষণা দেন তারা। এতে বলা হয়, নতুন সরকার গঠন ত্বরান্বিত করার জন্য তাদের জোট সাম্প্রদায়িক ও জাতিগত বিভেদ ভুলে গিয়ে কাজ করবে। এছাড়া তারা জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণের নীতিতে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন।

অন্য খবর  ইরাক ও কুয়েতে নতুন সামরিক ঘাঁটি নির্মাণ করবে আমেরিকা

বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে আল সদর বলেন, ‘পরবর্তী সরকার গঠন ত্বরান্বিত করা ও ইরাকি জনগণের স্বার্থের নিশ্চয়তার জন্য সাধারণ বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করার জন্য আমরা যৌথ সম্পদায়িক, যৌথ নৃতাত্ত্বিক জোটের ঘোষণা দিচ্ছি।’

আল সদর ২০১১ সাল পর্যন্ত মার্কিন আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সহিংস আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন। পরে তিনি ইরাকি জনগণের স্বার্থ রক্ষার জন্য নির্বাচনের মাধ্যমে রাজনীতিতে ফেরেন। তিনি ইরাকি সমাজের সব অংশ নিয়ে বৃহত্তর জোট গঠনের জন্য আহ্বান জানান। এর মাধ্যমে অন্তর্ভূক্তিমূলক সরকার গঠন করা যাবে।

এই জোট গঠনের ঘোষণায় নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইরানপন্থী হাদি আল আমিরির কথা উল্লেখ করা হয়নি। এই মাসের শুরুতে তার সঙ্গে জোট গঠনের ঘোষণা দিয়েছিলেন আল সদর। এই ঘোষণার পর আল আমিরির দলের পক্ষ থেকেও তাৎক্ষণিক কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। তবে আল আবাদি বলেছেন, এই চুক্তির মাধ্যমে আল সদরের অন্যান্য সহযোগীদের সঙ্গে কোনও আপোস করা হবে না।

ইরাকি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি নিশ্চয়তা দিচ্ছি, ইতোমধ্যে অন্যান্য পক্ষ জোট গঠন করলেও এই জোট কারও বিপরীত অবস্থান নেবে না। বরং একই উদ্দেশে ও এই নীতিতে চলবে’।

অন্য খবর  উত্তর ইরাকে হামলা চালানোর হুমকি দিলো তুরস্ক

আল সদরের জোটে কমিউনিস্ট ও অসাম্প্রদায়িক ইরাকিদের অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। তারা ইরাকে যেকোনও ধরনের বিদেশি হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। তা যুক্তরাষ্ট্র বা ইরান যেই হোক।  আর আমিরি ইরাকে ইরানের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ মিত্র। সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের সময় তিনি ইরানে দুই বছর নির্বাসনে ছিলেন।

Comments

comments