ইংল্যান্ডে টি-২০ ব্লাস্টে খেলছেন তামিম

195
ইংল্যান্ডে টি-২০ ব্লাস্টে খেলছেন তামিম

২০১১ সালেও গিয়েছিলেন একবার, এরপর বিরতি ছয় বছরের। তামিম ইকবাল আবার যাচ্ছেন ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে খেলতে। এবার খেলবেন তিনি কাউন্টি দল এসেক্সের হয়ে। ইংল্যান্ডের এই টি-টোয়েন্টি খেলার অনাপত্তিপত্র (এনওসি) পেয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে।

চ্যাম্পিয়নস ট্রফির গ্রুপ পর্বে নিজেদের প্রথম দুই ম্যাচে ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পর তামিমকে প্রস্তাব দেয় কাউন্টি ক্রিকেটের দল এসেক্স। এর আগে ২০১১ সালে প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ডের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি খেলেছিলেন তামিম। সেবার নটিংহ্যাম্পশায়ারের হয়ে সুযোগ পেয়েছিলেন মাত্র ৫ ম্যাচ খেলার। তবে এবারের চিত্রটা অন্যরকম হওয়ার কথা, কারণ সেরা ফর্মে থাকা তামিমকে দলে ভিড়িয়েছে এসেক্স।

কাল (শুক্রবার) থেকে শুরু হওয়া টুর্নামেন্টটি খেলতে শুক্রবার সকালেই দেশ ছাড়ছেন বাংলাদেশের সেরা এই ওপেনার।  কালকের ম্যাচটি তাই আর খেলা হচ্ছে না তামিমের। তবে ৯ জুলাইয়ের প্রথম দুই ম্যাচ খেলার সম্ভাবনা রয়েছে তামিমের।  বিসিবি ইতিমধ্যে তামিমকে এসেক্সে খেলার অনুমতি দিয়েছে। এই বিষয়ে বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘তামিম আমাদের কাছে আবেদন করেছিলেন, আমরা তার যাওয়ার ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছি। বোর্ডের পক্ষ থেকে তাকে অনাপত্তিপত্র দেয়া হয়েছে।’

অন্য খবর  তাসকিনকে নিয়ে বিন্দুমাত্র সংশয় নেই স্ট্রিকের

এসেক্সের অধিনায়ক রায়ান টেন ডেসকাটে। তিনি ছাড়াও তামিম ডেসিংরুম ভাগাভাগি করবেন অ্যালিস্টার কুক, আশহার জাইদি, রবি বোপারা, জেমস ফস্টারদের সঙ্গে।

সর্বশেষ চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে তামিমের ব্যাট হেসেছে। চার ম্যাচে ২৯৩ রান নিয়ে হয়েছেন টুর্নামেন্টের তৃতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক। এমন পারফরম্যান্সের পর এসেক্স যে তামিমের ব্যাটের দিকে তাকিয়ে থাকবে, এটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

তবে তামিমের এই লিগটি খেলা বেশ কঠিন হয়ে যাচ্ছে। কেননা আগামী মাসের শেষ দিকে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ। এরপরেই বাংলাদেশ পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকায়। ওখান থেকে ফিরে এক সপ্তাহও বিশ্রাম পাবে না টাইগাররা, খেলতে হবে বিপিএল। টানা খেলা থাকায় তামিমের জন্য সিদ্ধান্তটা বেশ কঠিনই ছিল। অনেক ভাবনা-চিন্তা করে শেষ পর্যন্ত এসেক্সে খেলার সিদ্ধান্তই নিয়েছন তামিম।

Comments

comments